পুরাতন মালদার ভাটরার বিল এখন একটুকরো দিঘা

600

রাজশ্রী প্রসাদ, পুরাতন মালদা : হঠাত্ দেখলে দিঘা বলে ভ্রম হওয়াটা স্বাভাবিক। সকাল,সন্ধ্যা উত্সাহী মানুষের ভিড়। কেউ ভাঙা ঢেউয়ে স্নান করতে ব্যস্ত। কেউ বা ব্যস্ত সেলফি তুলতে। পুরাতন মালদার সাহাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ভাটরা বিলের ছবিটা এখন এরকমই। সপ্তাহ তিনেক আগেও যেখানে ছিল সবুজ ধানখেত, সেখানে এখন আদিগন্ত জলরাশি। বিলের জল কুল ছাপিয়ে দক্ষিণ ভাটরা গ্রামের কাছে চলে এসেছে। কয়েক বর্গ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে বিস্তৃত এই বিল এখন জেলার মানুষের কাছে আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু। এমনকি বাইরে থেকে জেলায় ঘুরতে আসা মানুষও এখন ভিড় করছেন ভাটরা বিলে। যদিও ধানের জমি এই বিলের জলে তলিয়ে যাওয়ায় সংকটে পড়েছেন স্থানীয় কৃষকরা।

পুরাতন মালদার সাহাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে রয়েছে এই ভাটরা গ্রাম। এই গ্রামের পাশেই রয়েছে ভাটরা বা শান্তিপুর বিল। প্রায় ৪ বর্গ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে বিস্তৃত এই বিল। শান্তিপুর, মাধাইপুর, মোরগ্রামের মতো গ্রামগুলির লাইফলাইন এই বিল। বিলের চারিদিকেই ফসলের খেত। বিলের জল সেচ করেই শুখা মরশুমে চাষ করেন কৃষকরা। তবে বর্ষার মরশুম শুরু হতেই রূপ বদলাতে থাকে ভাটরা বিল। জল বাড়তে থাকায় কূল ছাপিয়ে তা ছড়িয়ে পড়ে চাষের জমিতে। আয়তনে বাড়তে বাড়তে এখন বিলটি প্রায় দক্ষিণ ভাটরা গ্রাম ছুঁয়ে ফেলেছে। প্রায় সাগরের চেহারা নিয়েছে বিল। বড়ো বড়ো ঢেউ দেখতে ভিড় করছেন শয়েশয়ে মানুষ। সমুদ্রের মতো গর্জন করে ভেঙে পড়া ঢেউযে স্নান করতে ভিড় ক্রমেই বাড়ছে। অনেকে সপরিবারে কাটিয়ে যাচ্ছেন একটা দিন। কেউ সেলফিতে ধরে রাখতে চাইছেন মুহূর্ত।

- Advertisement -

মোথাবাড়ি থেকে সপরিবারে এসেছিলেন নীলাংশু রায়। তিনি জানালেন, এটাকে ছোটোখাটো দিঘা বলা যেতে পারে। আমি প্রতিবারই এই বিল দেখতে আসি। এবারে বিলের সৌন্দর্য যেন আরও বেশি। কোনোদিনও দিঘা দেখেননি ইংরেজবাজারের বছর আশির কুসুমবালা রায। তবে দুধের স্বাদ ঘোলে মেটাতে এদিন নাতির হাত ধরে এসে উপস্থিত হয়েছিলেন ভাটরা বিলে। তিনি জানালেন, আর কদিন বাঁচব জানি না। টিভিতে দিঘা দেখেছি। খুব যাওয়ার ইচ্ছে হত। তবে কোনোদিন যাওযা হয়নি। আজকে নাতির হাত ধরে এখানে এসেছি। একদম দিঘার মতোই মনে হচ্ছে। বিলের ধারে বিকেলে আড্ডা জমাচ্ছেন স্কুল কলেজের পড়ুয়ারাও। তবে এত কিছুর পরেও আক্ষেপ থাকছেই স্থানীয় কৃষকদের। বলরাম দাস, হেমন্ত রায়ের মতো কৃষকরা জানালেন, বহু মানুষ বিল দেখতে আসছেন, ভালোই লাগছে। তবে ওই বিলের জলেই তো তলিয়ে গিয়েছে আমাদের কয়েক বিঘার ফসল।