নেশার ওষুধ সরবরাহে বিহার যোগ, ধৃত ২

100

জয়গাঁ: জেলা তথা জেলার বাইরে থেকেও ভুটান সীমান্তবর্তী জয়গাঁ শহরে ঘুমের ওষুধ, নেশার ওষুধ সরবরাহের অভিযোগ দীর্ঘদিনের। তবে রবিবার ভোরে বিহার থেকে আসা একটি ছোট গাড়ি থেকে জয়গাঁ থানার পুলিশ প্রচুর ঘুমের ওষুধ বাজেয়াপ্ত করার ঘটনায় পুলিশের কাছে ঘুমের ওষুধ সরবরাহে বিহার যোগ প্রকাশ্যে আসে। ঘটনায় দুই দুষ্কৃতীকে গ্ৰেপ্তার করার পাশাপাশি প্রায় ১ লক্ষ টাকার ঘুমের ওষুধ বাজেয়াপ্ত করেছে পুলিশ। এমন ঘটনায় প্রতিবেশী রাজ্যের যোগের প্রমান পাওয়ায় উদ্বিগ্ন জয়গাঁ থানার পুলিশ।

জয়গাঁর এসডিপিও এল টি ভুটিয়া বলেন, ‘ছোট গাড়ির পেছনে রসুনের বস্তায় লুকিয়ে প্রায় ২০০ পাতা ঘুমের ওষুধ জয়গাঁয় আনার পরিকল্পনা ছিল দুষ্কৃতীদের। জয়গাঁয় ঢোকার মুহূর্তে বিক্বি টোল এলাকায় গাড়িটি দাঁড় করিয়ে তল্লাশি চালাতেই বস্তায় লুকিয়ে রাখা ঘুমের ওষুধের হদিস পাওয়া যায়।’ তিনি বলেন, ‘ধৃত গাড়ির চালক পতরুস দোরজি জয়গাঁর ছোট মেচিয়া বস্তি ও ধৃত শ্রীনাথ শা গুয়াবাড়ি এলাকার বাসিন্দা। ধৃতদের এদিন আলিপুরদুয়ার মহকুমা আদালতে তুলে পুলিশি হেপাজতে আনা হয়েছে।’

- Advertisement -

অন্যদিকে জয়গাঁর মতো সীমান্ত শহরে মদ, মাদকের পাশাপাশি ঘুমের ওষুধের বিপুল চাহিদা রয়েছে। ওই ওষুধ আগে ভুটানে পাচার করা হত। এক বছর ধরে ভুটান গেট বন্ধ থাকায় দুষ্ক‌তীরা এখন জয়গাঁয় এমন অবৈধ কারবার চালিয়ে যেতে মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছে। যদিও সেখানে পুলিশ সক্রিয় থাকায় ঘুমের ওষুধ পাচারে সুবিধা করতে পারছেনা দুষ্কৃতীরা। এর আগে জয়গাঁ থানার ওসি অভিষেক ভট্টাচার্যের নেতৃত্বে প্রচুর ঘুমের ওষুধ, মাদক বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। এদিন সকালেও গোপন সূত্রে খবর পেয়ে ছোট গাড়িটিতে তল্লাশি চালান অভিষেকবাবু ও অন্য পুলিশকর্মীরা।

এদিকে রসুনের বস্তায় এমন ভাবে ঘুমের ওষুধ রাখা হয়েছে যাতে বাইরে থেকে বস্তায় ঘুমের ওষুধ রয়েছে বলে পুলিশ টের না পায়। যদিও দুষ্কৃতীদের এমন পরিকল্পনা বানচাল করে দেয় পুলিশ। এসডিপিও জানান, ধৃতদের জেরা করে ঘুমের ওষুধের অবৈধ কারবারে আর কে জড়িত তা জানার চেষ্টা চলছে।