বোঝাপড়াই ইউএসপি বিকাশ-হরমিপাম জুটির

শিলাজিৎ সরকার, কলকাতা : ভারতীয় ফুটবলে সেন্টার ব্যাক হিসেবে বিদেশিদের উপস্থিতি ক্রমেই বাড়ছে। প্রথমসারীর প্রতি ক্লাবেই ডিফেন্সে মূল দায়িত্ব কোনও না কোনও বিদেশির উপর। আইএসএলে তিরি, ফল, ফক্স বা আইলিগে কিংসলে, দাপট নজরে আসে বিদেশিদেরই।

এমন অবস্থায় ভারতীয় ফুটবলকে স্বপ্ন দেখাচ্ছে পাঞ্জাব এফসির বিকাশ ইউমনাম ও রুইভা হরমিপামের নিখাদ ভারতীয় জুটি। বছর আঠারোর বিকাশ ও বছর কুড়ির হরমিপাম চলতি আই লিগে চার ম্যাচ একসঙ্গে খেলে মাত্র ২ গোল খেয়েছেন, ক্লিনশিট দুই ম্যাচে। প্রথম কয়েক ম্যাচে পরীক্ষানিরীক্ষা করলেও সুদেভা ম্যাচের পর থেকে বিকাশ-রুইভা জুটিকেই ডিপ ডিফেন্সে চূড়ান্ত করেছেন পাঞ্জাবের কোচ কার্টিস ফ্লেমিং।

- Advertisement -

দীর্ঘদিন ধরেই একসঙ্গেই খেলছেন দুজনে। দুই মণিপুরী তরুণেরই শুরুটা মিনার্ভা অ্যাকাডেমি থেকে। তারপর বয়েসভিত্তিক জাতীয় দলেও পাশাপাশি খেলেছেন। গত আই লিগে ইন্ডিয়ান অ্যারোজের জার্সিতেও বেশ সফল তাঁরা। লিগ তালিকা বা সংখ্যাতত্বের বিচারে তেমন নজরকাড়া না হলেও, একসঙ্গে খেলে এই জুটি কখনই ২ গোলের বেশি হজম করেনি। চলতি আই লিগেও তাঁদের টপকে গোল করাটা সহজ হয়নি ডিপান্ডা ডিকা, ম্যাসন রবার্টসন, কোমেরন তুরসুনভদের পক্ষে।

একসঙ্গে পরপর ম্যাচ খেলাটাই নিজেদের বোঝাপড়ার কারণ বলে মত দুজনের। বিকাশের কথায়, হরমিপাম একটু উঠে খেলতে পছন্দ করে। দীর্ঘদিন ধরে একসঙ্গে খেলার ফলে আমি জানি ও কখন উঠবে আর কখন নেমে আসবে। একইসুরে হরমিপাম বললেন, বিকাশ কখন কোথায় থাকতে পারে, সেটা আমি জানি। দুজন দুজনের খেলাটা খুব ভালো করে জানি। এটাই আমাদের ইউএসপি।

গত বছর একটি ব্রিটিশ সংবাদপত্র বিকাশকে ভবিষ্যতের তারকাদের তালিকায় স্থান দিয়েছে। প্রথম ভারতীয় হিসেবে বিশ্বের সেরা ক্লাবগুলির যুব তারকাদের সঙ্গে একাসনে উঠে এসেছেন। তা নিয়ে বিকাশের বক্তব্য, সেই দিনটা জীবনের অন্যতম স্মরণীয় দিন। এত বড় তালিকায় নাম উঠবে, সেটা ভাবতে পারিনি। আমার লক্ষ্য জাতীয় দলের জার্সিতে সর্বোচ্চ স্তরে খেলা। তার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

আই লিগে খেলার ফাঁকে সময় পেলেই আইএসএল দেখছেন দুজনেই। বিকাশের পছন্দ মুম্বইয়ে আহমেদ জাহুর খেলা। বললেন, মুম্বইয়ে সাফল্যের পেছনে জাহুর অবদান অনেকটাই। ওর খেলা দেখে অনেক কিছু শেখা যায়। এক্ষেত্রে হরমিপামের উত্তর অন্য। তাঁর পছন্দ নর্থইস্ট ইউনাইটেডের লালেংমাওইয়া। আইএসএলে অফার পেলেও আপাতত পাঞ্জাব এফসিতেই খুশি বলে জানালেন দুজনেই। তবে পরবর্তীতে বিদেশে খেলার ইচ্ছে রয়েছে তাঁদের।

অ্যারোজের হয়ে আই লিগ খেলাটা বড় সুযোগ বলে মনে করছেন তাঁরা। তাঁদের মতে, আই লিগ ও জুনিয়র পর্যায়ে মানের তফাত আছে। আই লিগে চ্যালেঞ্জ অনেক বেশি। অল্প বয়স থেকেই সর্বোচ্চ পর্যায়ে খেলার ফলে তাঁদের আত্মবিশ্বাস বেড়েছে। আর একসঙ্গে খেলার সুযোগ মেলায় বোঝাপড়াও বেড়েছে। বিকাশ-হরমিপাম জুটির এই বোঝাপড়া নিয়ে আশাবাদী এদেশের ফুটবলপ্রেমীরা।