বন্ধ মিটারে প্রায় সাড়ে তিন লক্ষাধিক টাকার বিল, বিপাকে স্কুল কর্তৃপক্ষ

129

বালুরঘাট: একে করোনা পরিস্থিতিতে স্কুল বন্ধ। তার উপর দীর্ঘদিন ধরেই খারাপ রয়েছে মিটার। অথচ বিল এসেছে প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ টাকা। এমনকী সময়মতো বিল না মেটানোয় স্কুলের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়েছে। টেট পরীক্ষার দু’দিন আগে এমন ঘটনায় প্রবল সমস্যায় পড়েছেন বালুরঘাট নদীপার নরেশচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা। পাশাপাশি বিদ্যালয়ের অনলাইন পঠন-পাঠন সহ বিভিন্ন বিষয়ে এর প্রভাব পড়েছে বলেও দাবি শিক্ষকদের।

বিদ্যালয় সূত্রে জানা গিয়েছে, দীর্ঘদিন ধরেই নষ্ট হয়ে রয়েছে বিদ্যালয়ের বিদ্যুতের মিটারটি। বিদ্যুৎ দপ্তরের কর্মীরাই মিটার খারাপের বিষয়টি লিখিতভাবে জানিয়ে দিয়েছেন। তার উপরে করোনার জন্য স্কুলও অনিয়মিত।এরপরেও নতুন বিদ্যুৎ বিল হাতে পেয়ে আঁতকে উঠেছে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। বিদ্যালয়ের ইলেকট্রিক বিল এসেছে ৩৪৪৬৩৪ টাকা। এত টাকার ইলেকট্রিক বিল দেখে অবাক বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। করোনা পরিস্থিতিতে বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় বিদ্যুতের ব্যবহার হয়না বললেই চলে।

- Advertisement -

সেক্ষেত্রে লক্ষাধিক টাকার বিল আসায় সমস্যা পড়েছেন বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এমনকি বিল না দেওয়ায় কেটে দেওয়া হয়েছে বিদ্যুৎ সংযোগ। আগামী ৩১ জানুয়ারি সারা রাজ্যে রয়েছে টেট পরীক্ষা। এই বিদ্যালয়ে পরীক্ষার সেন্টার পড়েছে। বিদ্যুৎ বিহীন অবস্থায় কিভাবে পরীক্ষা নেওয়া হবে তা নিয়ে দুঃশ্চিন্তায় স্কুল কর্তৃপক্ষ। তবে এই দায় বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের উপর চাপিয়েছে বিদ্যুৎ দপ্তর। তাদের মতে বারবার বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করার কথা বলা হলেও, বিল পরিশোধের ব্যাপারে কোনও উদ্যোগ নেয়নি স্কুল। ফলে নিয়ম অনুযায়ী বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে বাধ্য হয়েছে বিদ্যুৎ দপ্তর।