নয়াদিল্লি, ১৬ নভেম্বরঃ ‘টিপ, সিঁদুর ও কাজলকে যদি অতিপ্রয়োজনীয় পণ্যের তকমা দিয়ে জিএসটির বাইরে রাখা হলেও স্যানিটারি ন্যাপকিনকেন জিএসটির আওতায় রাখা হয়েছে কেন?’ কেন্দ্রকে এমনই প্রশ্ন করল দিল্লি হাইকোর্ট।

দিল্লি হাইকোর্টের চিফজাস্টিস গীতা মিত্তল ও জাস্টিস সি হরিশঙ্কর বলেন, স্যানিটারি ন্যাপকিন অতিপ্রয়োজনীয় একটি জিনিস, তার জন্য কর ধার্য করার সপক্ষে কোনও বিশ্লেষণই খাপ খায় না। এছাড়া ৩১ সদস্যের জিএসটি প্যানেলে কোনও মহিলা সদস্যকে না রাখা নিয়েও আদালত অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে।

আদালতের তরফে কেন্দ্রকে প্রশ্ন করা হয়, বিষয়টি নিয়ে কেন্দ্রীয় মহিলা ও শিশুকল্যাণ দফতরের সঙ্গে কথা বলা হয়েছে কিনা। সামগ্রিক বিকাশের ক্ষেত্রে এই বিষয়টি নিয়ে ভাবা উচিত বলেও দাবি করা হয় দিল্লি হাইকোর্টের তরফে।

উল্লেখ্য, দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী জারমিনা খান স্যানিটারি ন্যাপকিনের ওপর ১২ শতাংশ জিএসটি লাগু করার বিষয়ে একটি পিটিশন দায়ের করেন হাইকোর্টে। সেই পিটিশনেরই শুনানি চলে আজ।