একটা কমিউনিটি হল তৈরি হয়নি ২৬ বছরে  

410

বীরপাড়া, ২০  জুলাই : ২৬ বছর ধরে একটা কমিউনিটি হল চালু করা যায়নি। অবিশ্বাস্য মনে হলেও এমনটাই হয়েছে বীরপাড়ায়। এখানকার মজদুর ক্লাবের মাঠে ওই হলঘর তৈরির কাজ শুরু হয়েছিল ১৯৯৩ সালে। তারপর বাম জমানা শেষ হয়ে তৃণমূলের রাজত্বে আট বছর কেটে গিয়েছে। কমিউনিটি হল ঘিরে ঝোপঝাড় তৈরি হয়ে গিয়েছে। বীরপাড়া ১ নং গ্রাম পঞ্চায়েতের সিপিএমের  প্রাক্তন   প্রধানদের একজন  তথা বর্তমানে বিজেপি নেতা বুধুয়া লাকড়া  বলছেন, ‘ কিছু কাজ অসম্পূর্ণ রয়ে গিয়েছে। তাই আর সেটি উদ্বোধন করা যায়নি।’ তৃণমূলের আলিপুরদুয়ার জেলা কমিটির সদ্য প্রাক্তন সহসভাপতি তথা মাদারিহাট বীরপাড়া পঞ্চায়েত সমিতির প্রাক্তন বিরোধী দলনেতা প্রশান্ত নাহা বলেন, ‘ ওই কমিউনিটি হলটি বাম জমানার নানা দুর্নীতির একটি দৃষ্টান্ত । ভবনটির নির্মাণকাজে ব্যাপক অনিয়ম করা হয়েছিল। ফলে, পুরো টাকাটাই জলে গিয়েছে। এখন ইচ্ছা থাকলেও আর ওই ঘরটিকে কমিউনিটি হল হিসেবে ব্যবহার করা সম্ভব নয়। কারণ, ২৬ বছর ধরে অব্যবহৃত হয়ে পড়ে রয়েছে ঘরটি।’

হলঘরটি এমনভাবে নির্মাণের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছিল যাতে শব্দের প্রতিধ্বনি না হয়। কিন্তু হলঘরটি নির্মাণের পর দেখা গিয়েছে, সেই পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হয়নি। হলঘরটিতে বসানো হয়েছিল আটশো চেয়ার। তৃণমূলের  প্রশান্ত নাহা বলেন, প্রত্যেকটি চেয়ারের মূল্য সেসময় ১৫০-২০০  টাকা করে হলেও হিসাব দেখানো হয় ৯০০ টাকা প্রতি চেয়ার।’ তবে বর্তমানে একটি চেয়ারও অবশিষ্ট নেই কমিউনিটি হলটিতে। কমিউনিটি হলটির সামনের ফাঁকা জায়গা বর্তমানে  স্থানীয়দের আবর্জনা ফেলার জায়গায় পরিণত হয়েছে । শৌচাগার নির্মাণের কাজ আজও অসম্পূর্ণ।

- Advertisement -

১৯৯৮ সাল থেকে বীরপাড়া ১ নং গ্রামপঞ্চায়েতের উপপ্রধান ও ভারপ্রাপ্ত  প্রধানের পদে ছিলেন আরএসপির চম্পা সরকার। বর্তমানে তিনি তৃণমূল পরিচালিত মাদারিহাট বীরপাড়া পঞ্চায়েত সমিতির জনস্বাস্থ্য কর্মাধ্যক্ষ। চম্পাদেবী বলেন, ” কয়েক বছর ধরে কাজ চলেছিল । তবে, কত টাকা খরচ হয়েছিল তা মনে নেই। বীরপাড়ায় কমিউনিটি হল অত্যন্ত প্রয়োজন। হলঘরটির সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় সত্যিই খারাপ লাগে।’

 

ছবি – ২৬ বছরেও বীরপাড়ায় এই কমিউনিটি হলের উদ্বোধন হয়নি ।