ওয়াটলিংয়ের জিম্মায় চ্যাম্পিয়নশিপ স্মারক

অকল্যান্ড : ইতিহাস গড়ে গতকালই নিউজিল্যান্ডে পা রেখেছে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

পরিবারের সঙ্গে অবশ্য এখনই মিলিত হওয়ার সুযোগ ঘটেনি। কোভিড প্রোটোকল মেনে ১৪ দিনের আইসোলেশন পর্ব। তারপর বাড়ি ফেরার অনুমতি। আর আইসোলেশনে জয়ে স্মারক দণ্ড সামলানোর দায়িত্বে বিদায়ী উইকেটরক্ষক বিজে ওয়াটলিং।

- Advertisement -

সতীর্থ নীল ওয়াগনর এদিন বলেন, ম্যাচের দিন সারারাত সেলিব্রেশন করেছি। বিমানযাত্রার সময় সবাই ঘুরিয়েছিরিয়ে স্মারক দণ্ড নিজেদের কাছে রাখার সুযোগ কেউ হাতছাড়া করিনি। আপাতত যা বিজে ওয়াটলিংয়ের কাছে। সপ্তাহ দুয়েকের আইসোলেশনের সময় ওর কাছেই চ্যাম্পিয়নশিপ মেস থাকবে। ওর জন্য পারফেক্ট বিদায়পর্ব। অসাধারণ কেরিয়ার। টিম সবার আগে- এই অ্যাটিচিউডকে সবসময় গুরুত্ব দিয়েছে ওয়াটলিং। নিঃসন্দেহে আমরা ওকে মিস করব।

কোভিড পরিস্থিতিতে ক্রিকেট নায়কদের নিয়ে উৎসবে কিছুটা রাশ। তবে উৎসাহ-অভিনন্দনে ভাঁটা নেই। ওয়াগনরের কথায়, সবকিছু স্বপ্নের মতো লাগছে। সোশ্যাল ডিস্ট্যান্সিং থাকলেও, আমাদের নিয়ে সবার আগ্রহ চোখে পড়ার মতো। দূর থেকে অভিনন্দন জানিয়ে যাচ্ছে। ছবি তুলছে। এয়ারপোর্টে সবাই চ্যাম্পিয়নশিপ মেস (স্মারক দণ্ড) দেখার জন্য মুখিয়ে ছিল। জানতে চাইছিল কোথায় মেস? সত্যি বলতে আমার কাছে এটা একেবারে নতুন অভিজ্ঞতা।

এদিকে, শচীন তেন্ডুলকার আবার কিউয়ি ক্রিকেটের নবতম তারকা কাইল জেমিসনে মজে। বছর ছাব্বিশের জেমিসন ম্যাচে ৭ উইকেটের পাশাপাশি প্রথম ইনিংসের গুরুত্বপূর্ণ ২১ রান করেন। শচীন বলেন, দুর্দান্ত বোলার। ইউজফুল অলরাউন্ডার। বিশ্ব ক্রিকেটের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার হতে চলেছে। গতবছর হোম সিরিজে ভারত সিরিজে যখন দেখেছিলাম, তখনও ব্যাটিং-বোলিং ক্ষমতা আমাকে আকর্ষিত করেছিল। সাউদি, বোল্ট, ওয়াগনরের থেকে ও অন্যরকম। হিট দ্য ডেক বোলার। সিম মুভমেন্ট কাজে লাগায় জেমিসন। লাইন-লেংথে ধারাবাহিকতাও প্রশংসনীয়।