বর্ধমান, ৫ ডিসেম্বরঃ মদের আসরে বসে বিজেপি সমর্থক কৃষ্ণ হাঁসদাকে চড় মেরেছিলেন পূর্ব বর্ধমানের মাধবডিহির তৃণমূল কর্মী অনিল মাঝি। মার খেয়ে বেজায় চটে গিয়ে ৫২ বছর বয়সী তৃণমূল কর্মী অনিল মাঝি ওরফে কচিকে নৃশংস ভাবে খুন করে বসে কৃষ্ণ। মাধবডিহির তৃণমূল কর্মীর খুনের ঘটনায় পুলিশি তদন্তে উঠে এসেছে এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য।
পুলিশের দবি জেরায় কৃষ্ণ জানিয়েছে, ‘ওই রাতে ঘটনাস্থলের কাছে সে ও আরও দুজন মিলে মদের আসর বসিয়েছিল। রাতে বাইক চালিয়ে নিজের বাড়ি যাবার সময়ে মদের আসর দেখে অনিল মাঝি দাঁড়িয়ে পড়ে। তিনিও মদের আসরে যোগদেয় । অনিল মদের আসরে যোগ দেওয়ার পর অন্য দুজন চলে যায়।  এরপর কৃষ্ণ ও অনিল  মিলে  মদ খেতে থাকে। কৃষ্ণর জানায়, মদ খাওয়ার সময়ে সে কেন বিজেপি করে এই প্রশ্ন তুলে অনিল তাঁকে সপাটে গালে চড় কষায়। এই ঘটনার পর রাগের মাথায় সে একটি মোটা বাঁশ দিয়ে আনিলের মাথায় একাধিক বার আঘাত করে। মৃত্যু নিশ্চিৎ হবার পর সে মৃতদেহ টেনে নিয়ে গিয়ে সাঁইপুকুরের কাদায় ফেলে দেয়। খুনের ধারায়  মামলা রুজু করে পুলিশ  বৃহস্পতিবার ধৃতকে পেশ করে বর্ধমান আদালতে।  বিচারক ধৃতের  ১০ দিন পুলিশ  হেপাজতের নির্দেশ দিয়েছেন। জেলা বিজেপি সম্পাদক বিজন মন্ডল বলেন, ‘মদের আসরে বসে কে কি ঘটনা ঘটাচ্ছে তার দায় বিজেপির নয়। রাজ্যে এমনন হাজার হাজার মানুষ আছে যারা নিজেকে বিজেপি সমর্থক বলে দাবি করে। কেউ নিজেকে বিজেপি সমর্থক বলে দাবি করে কোন অপকর্ম করলে তার দায় বিজেপি দলে নবে না’।