Breaking News: করোনায় মৃত্যু রাজ্যসভার সাংসদের

566

অনলাইন ডেস্ক: করোনায় মৃত্যু হল রাজ্যসভার সাংসদ অশোক গাস্তির (৫৫)। তিনি জুন মাসে কর্ণাটক থেকে রাজ্যসভার সাংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন। বৃহস্পতিবার রাত ১০টা ৩১-এ কোভিড পজিটিভ সাংসদের মৃত্যু হয়েছে। উত্তর কর্ণাটকের রায়চুরের বাসিন্দা অশোক গাস্তি এর আগে একজন বুথস্তরের কর্মী ছিলেন। জুন মাসে সাংসদ নির্বাচিত হলেও করোনা ভাইরাস ও লকডাউনের কারণে প্রথমবারের সাংসদ অশোক গাস্তি সংসদের অধিবেশনে যোগ দিতে পারেননি। 

- Advertisement -

বুথস্তরের কর্মী থেকে সরাসরি রাজ্যসভার সাংসদ নির্বাচিত হওয়া নিঃসন্দেহে একটি নজিরবিহীন ঘটনা। সাংসদ হওয়ার পর একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে অশোক গাস্তি বলেন, এটি একটি খুব আনন্দের ঘটনা। বুথ স্তরের কর্মী এরূপ স্বীকৃতি পেয়েছে। এই জাতীয় স্বীকৃতি কেবল বিজেপিতেই সম্ভব। এতে লক্ষ লক্ষ বিজেপি কর্মী প্রচুর উৎসাহ পেয়েছেন। আমি সমস্ত বিজেপি নেতাদের ধন্যবাদ জানাতে চাই।

তাঁর মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি শোকপ্রকাশ করেছেন। মোদি লিখেছেন, রাজ্যসভার সাংসদ শ্রী অশোক গাস্তি একজন নিবেদিতপ্রাণ কার্যকর্তা ছিলেন, যারা কর্ণাটকে দলকে শক্তিশালী করতে কঠোর পরিশ্রম করেছিলেন। তিনি সমাজের দরিদ্র ও প্রান্তিক শ্রেণীর ক্ষমতায়নের বিষয়ে আগ্রহী ছিলেন। তাঁর পরিবার ও বন্ধুদের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি। ওম শান্তি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাও টুইটে শোকপ্রকাশ করেছেন। শাহ লিখেছেন, রাজ্যসভার সাংসদ এবং কর্ণাটকের প্রবীণ নেতা শ্রী অশোক গাস্তি জি-র অকাল মৃত্যুতে আমি বেদনাহত। বছরের পর বছর ধরে তিনি একাধিক ভূমিকাতে সংগঠন ও জাতির সেবা করেছেন। তাঁর পরিবারের দুঃখের সময়ে পরিবারকে আমার গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।ওম শান্তি শান্তি শান্তি।

 

উপরাষ্ট্রপতি এবং রাজ্যসভার চেয়ারম্যান এম ভেঙ্কাইয়া নাইডু তাঁর মৃত্যুতে শোকজ্ঞাপন করেছেন। তিনি টুইটেলেখেন, রাজ্যসভার সদস্য শ্রী অশোক গাস্তির মৃত্যু সম্পর্কে জানতে পেরে আমি গভীরভাবে দুঃখিত। তিনি তাঁর সরলতা এবং নিম্নবিত্তদের উন্নয়নের প্রতিশ্রুতিবদ্ধতার জন্য পরিচিত ছিলেন। শোকাহত পরিবারের সদস্যদের প্রতি আমার আন্তরিক সমবেদনা রইল। ওম শান্তি!

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, করোনা আক্রান্তের সংখ্যার নিরিখে রাজ্যগুলির মধ্য়ে চার নম্বরে রয়েছে কর্ণাটক। কর্ণাটকে এপর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৪,৮৪,৯৯০ জন। সুস্থ হয়েছেন ৩,৭৫,৮০৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭,৫৩৬ জনের। সেখানে করোনা অ্যাক্টিভ কেসের সংখ্যা ১,০১,৬৪৫। এদিকে দেশে এখনও পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৫১,১৮,২৫৩ জন। তার মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৪০,২৫,০৭৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ৮৩,১৯৮ জনের। অর্থাৎ, দেশে করোনা অ্যাক্টিভ কেসের সংখ্যা ১০,০৯,৯৭৬।