মেখলিগঞ্জের ১৫টি বুথে দুই সংখ্যা পেরোয়নি বিজেপি

160

মেখলিগঞ্জ: গত লোকসভা ভোটে মেখলিগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্র থেকে প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার ভোটে এগিয়ে ছিল বিজেপি। সেই কারণে মেখলিগঞ্জের বিজেপি নেতাদের কাছে প্রত্যাশিত ছিল বিধানসভা নির্বাচনে জয় নিশ্চিত। কিন্তু ভোট গণনার দিন দেখা গেল উলটো চিত্র। জয় তো দূরের কথা তৃণমূল প্রার্থী পরেশ অধিকারী বিজেপি প্রার্থী দধিরাম রায়কে ১৪৬৮৫ ভোটে পরাজিত করে। অপ্রত্যাশিতভাবে বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজয় মেনে নিতে পারছে না মেখলিগঞ্জের বিজেপি নেতৃত্ব৷ দলীয় পর্যায়ে না হলেও মেখলিগঞ্জের বিভিন্ন জায়গায় বিক্ষিপ্তভাবে দলের পরাজয়ের কারণ খুঁজতে মরিয়া।

মেখলিগঞ্জের ১৫টি বুথে দুই সংখ্যার ভোট পার করতে পারেনি বিজেপি, পরাজয়ের কারণ খতিয়ে দেখতে চক্ষুচড়ক গাছ মেখলিগঞ্জের বিজেপি নেতাদের। এই ১৫টির মধ্যে দুটি বুথে আবার দুই সংখ্যার ভোটও পায়নি বিজেপি। মেখলিগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের ৯৬ নম্বর বুথে বিজেপি মাত্র ৮টি এবং ২১৫(এ) বুথে বিজেপি ভোট পায় মাত্র ৩টি। যেসমস্ত বুথে তিন সংখ্যার কম ভোট পেয়েছে সব গুলি সংখ্যালঘু অধ্যুষিত।

- Advertisement -

যদিও বিজেপির মেখলিগঞ্জ শহর টাউন মণ্ডলের সাধারণ সম্পাদক আশেকার রহমানের দাবি, বিজেপির বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানো হয়েছে সংখ্যালঘু এলাকায়। তিনি বলেন, ‘বিজেপিকে রুখতে সংখ্যালঘুদের একত্রিত হওয়ার কথা স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী বলেছে। শুধু সংখ্যালঘু নয় আমরা লোকসভায় যা ভোট পেয়েছি তার থেকে বেশি ভোট পেয়েছি কিন্তু সংযুক্ত মোর্চার প্রায় সব ভোট তৃণমূলে গেছে। আর এতেই আমরা অনেকটা পিছনে পড়ে যাই।’

কুচলিবাড়ির যুব মোর্চার নেতা তথা যুব মোর্চার জলপাইগুড়ি জেলা সভাপতি জ্যোতি বিকাশ রায় বলেন, ‘যেসমস্ত বুথে আমাদের সংগঠন কম ছিল আমরা সেখানে সেভাবে প্রচার করতে পারেনি।‘ অন্যদিকে, বিজেপির পরাজিত প্রার্থী দধিরাম রায় জানান, ভোটের ফল যাই হোক এবার সংগঠনের কাজে মন দেবেন।