ভোটের সময় তৃণমূলকে রুখতে বিজেপির উমা বাহিনী

475

শিলিগুড়ি : ছেলেদের শরীরচর্চায় মন দিয়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা হয়েছিল আগেই, এবার ভোটের দিকে নজর রেখে মহিলাদের আত্মরক্ষার পাঠ দেওয়া শুরু করল বিজেপি। তৈরি করা হল উমা বাহিনী। প্রকাশ্যে আত্মরক্ষার কথা বলা হলেও, বিধানসভা নির্বাচনের সময় দাদাগিরি রুখতে মহিলাদের এগিয়ে দেওয়ার কৌশলই নিচ্ছে গেরুয়া শিবির যা স্পষ্ট হয়েছে মঙ্গলবার উমা বাহিনীর প্রশিক্ষণ শিবির থেকে। কীভাবে ঝুটঝামেলা মোকাবিলা করতে হবে, সমস্ত প্রতিরোধ ভেঙে দিয়ে ভোটারদের বুথমুখী করতে হবে, সেই পাঠই এদিন দিতে দেখা গেল প্রশিক্ষকদের। যদিও বিজেপির নারী মোর্চার দার্জিলিং জেলা সভানেত্রী জুলি তামাং বলেন, রাজ্যে যেভাবে নারী নির্যাতন বাড়ছে এবং ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে, তাতে মহিলারা সুরক্ষিত নন। তাই আত্মরক্ষার জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা। মহিলাদের জাগ্রত করাই আমাদের লক্ষ্য।

বিধানসভা নির্বাচনে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূলের সঙ্গে সমানতালে টক্কর দিতে সব পথেই হাঁটতে চাইছে বিজেপি। ভোটের সময় তৃণমূল পঞ্চায়েত নির্বাচনের মতো গণ্ডগোল বাধাতে পারে, এই আশঙ্কায় টক্কর দেওয়ার লক্ষ্যে রাজ্যের প্রতিটি জেলায় যুবকদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার কাজ শুরু করেছে বিজেপি। যদিও তা হচ্ছে আরএসএসের ছাতার তলায়। কিন্তু এবার মহিলাদের আত্মরক্ষার নামে ভোটের কাজে ব্যবহারের লক্ষ্যে কাজ শুরু করল বিজেপি। মহিলা মোর্চার রাজ্য সভানেত্রী অগ্নিমিত্রা পলের নির্দেশে মঙ্গলবার শিলিগুড়িতেও শুরু হয়েছে আত্মরক্ষার বিশেষ প্রশিক্ষণ। এদিনের শিবিরে শহর এবং গ্রামীণ এলাকা মিলিয়ে ১১০ জন অংশ নিয়েছিলেন। প্রধান প্রশিক্ষক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কলকাতার মৌসুমি পাল। বিজেপি সূত্রে খবর, ডিসেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে শুরু হবে মণ্ডলগুলিতে এই ধরনের প্রশিক্ষণ। শহর এবং গ্রাম মিলিয়ে বিজেপির শিলিগুড়ি সাংগঠনিক জেলায় রয়েছে ২০টি মণ্ডল। কিন্তু কেন উমা বাহিনী গঠনের প্রয়োজনীয়তা পড়ল? বিজেপির আশঙ্কা, ভোটের সময় ঝামেলা বাধাবে তৃণমূল। যার জেরে অনেক সাধারণ মানুষ বুথে লাইনে দাঁড়ানো থেকে নিজেদের বিরত রাখবেন। তাছাড়া, বড় ধরনের গণ্ডগোল হলে বিজেপি কর্মীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে পুলিশ। তাই তৃণমূলের চেষ্টা প্রথমেই ভেস্তে দিতে মহিলাদের তৈরি রাখা। অর্থাত্ কোথাও গণ্ডগোলের সূত্রপাত হলেই উমা বাহিনীর সদস্যরা এগিয়ে যাবেন। তৃণমূল কর্মী-সমর্থকদের সামনে রুখে দাঁড়াবেন। মহিলা হওয়ায় উমা বাহিনীর সদস্যদের ওপর তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকরা প্রথমে হাত তুলতে সাহস পাবে না বলে বিজেপি নেতাদের ধারণা। এই ধারণা থেকেই কোনও গণ্ডগোলের সৃষ্টি হলে তা প্রতিরোধ করতে হবে কীভাবে, কেমনভাবে যাবতীয় ঝামেলা থেকে আত্মরক্ষা করতে হবে, সমস্তটাই শেখানো হবে ডিসেম্বর থেকে প্রত্যেকটি মণ্ডলে শুরু হওয়া প্রশিক্ষণ শিবিরে। যার প্রাথমিক পাঠ দেওয়া হয়েছে এদিন বিজেপির শিলিগুড়ি জেলা কার্যালয়ে। এদিনের শিবিরে অনেক স্কুল পড়ুয়ার উপস্থিতি দেখা গিয়েছে। দলের শিলিগুড়ি সাংগঠনিক জেলার সাধারণ সম্পাদক আনন্দময় বর্মন বলেন, ক্ষমতায় থাকতে মরিয়া তৃণমূল রাজ্যের সর্বত্র সন্ত্রাস কায়েম করেছে। তাই এখন থেকেই গ্রামগুলিতে অত্যাচার শুরু করে দিয়েছে। বিজেপি সমর্থক বুঝলেই মারধর করা হচ্ছে। এই ধরনের ঘটনা প্রতিরোধ করতেই উমা বাহিনী গঠন।

- Advertisement -