তৃণমূলের ফেস্টুন ছিঁড়ে ফেলার অভিযোগে বিক্ষোভ

83

গঙ্গারামপুর: গঙ্গারামপুর বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী গৌতম দাসের নির্বাচনি ট্যাবলোতে লাগানো ফেস্টুন ছিঁড়ে ফেলার অভিযোগ উঠল বিজেপি-র বিরুদ্ধে। বুধবার ঘটনায় উত্তেজনা ছড়ায় গঙ্গারামপুরে। এই ঘটনার প্রতিবাদে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের দাবিতে এদিন গঙ্গারামপুর থানার সামনে বিক্ষোভ দেখান ব্লক তৃণমূল নেতৃত্ব। গঙ্গারামপুর থানার সামনে গঙ্গারামপুর-তপন রোড অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকরা। এর পাশাপাশি অভিযুক্তদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার না করা হলে আগামী দিনে বৃহত্তর আন্দোলনে যাওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দেন গঙ্গারামপুর ব্লক তৃণমূল সভাপতি মৃণাল সরকার। এই ঘটনায় গঙ্গারামপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন তৃণমূল নেতৃত্ব। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছে বিজেপি।

তৃণমূল সূত্রের খবর, তৃণমূল প্রার্থী গৌতম দাসের সমর্থনে নির্বাচনি প্রচার শেষে গঙ্গারামপুর পুরসভার সাত নম্বর ওয়ার্ডের সাহাপাড়া এলাকায় ট্যাবলোটি রাখা ছিল। গতকাল রাতে বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা সেই ট্যাবলোয় লাগানো ফেস্টুনের বেশকিছু অংশ ছিঁড়ে ফেলে। এই ঘটনার প্রেক্ষিতে তৃণমূল নেতৃত্ব একটি সিসিটিভি ফুটেজ প্রকাশ্যে আনে। জানা গিয়েছে, সেই সিসিটিভি ফুটেজে চারজন দুষ্কৃতীকে রাতের অন্ধকারে ট্যাবলোটিতে লাগানো ফেস্টুন ছিঁড়ে ফেলতে দেখা যায়। তবে দুষ্কৃতীরা কারা তা চেনা যায়নি। বিষয়টি এদিন সকালে প্রকাশ্যে আসতেই চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়। এরপর এই ঘটনার প্রতিবাদে এবং এই ঘটনায় বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে গঙ্গারামপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন তৃণমূল নেতৃত্ব।

- Advertisement -

এই প্রসঙ্গে গঙ্গারামপুর ব্লক তৃণমূল সভাপতি মৃণাল সরকার জানান, গতকাল রাতে প্রচার শেষে ট্যাবলোটি ৭ নম্বর ওয়ার্ডে রাখা ছিল। রাতের অন্ধকারে বিজেপি আশ্রিত চারজন দুষ্কৃতী মোটরবাইক নিয়ে এসে ট্যাবলোর ফেস্টুনটি ছিঁড়ে ফেলে। সিসিটিভি ফুটেজে তা দেখা গিয়েছে। মূলত গঙ্গারামপুরকে অশান্ত করার উদ্দেশ্যে এই ঘটনা বলে অভিযোগ করেন তিনি। এই ঘটনায় এদিন গঙ্গারামপুর থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এই বিষয়ে কোনও প্রশাসনিক পদক্ষেপ গ্রহণ করা না হলে বৃহত্তর আন্দোলনে যাওয়া হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। তবে বিজেপির বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করে বিজেপির গঙ্গারামপুর শহর মণ্ডল সভাপতি মনিরত্নম সাহা’র বক্তব্য, এই ধরণের ঘটনার সঙ্গে বিজেপি-র কোনও যোগ নেই। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।