চায়ের আড্ডায় জনসংযোগ চালাচ্ছে বিজেপি

934
আলিপুরদুয়ার-১ ব্লকে বিজেপির চায়ের আড্ডার আসরে জনসংযোগ

সুভাষ বর্মন, শালকুমারহাট: আলিপুরদুয়ার-১ ব্লকের বিভিন্ন এলাকায় একটু ভিন্ন কায়দায় জনসংযোগ চালাচ্ছে বিজেপি। রোজ ভোর ৫টা থেকে সাড়ে ৬টা পর্যন্ত বুথে বুথে গিয়ে চায়ের আড্ডা বসাচ্ছেন বিজেপির নেতারা। ওই আড্ডায় সাধারণ ভোটারদের একাংশও শামিল হচ্ছেন। কেন্দ্রীয় সরকারের জনমুখী নীতি নিয়ে ওই আড্ডায় চর্চা হচ্ছে। সূত্রের খবর, সকালে পরিবেশ অনেকটাই শান্ত থাকে। সেই পরিবেশে আড্ডায় বসে জনসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছে বিজেপি। যদিও বিজেপির এই তৎপরতাকে গুরুত্ব দিতে চায়নি তৃণমূল কংগ্রেস।

আলিপুরদুয়ার বিধানসভা আসনের আলিপুরদুয়ার-১ ব্লকের ১০টি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই ব্লকের সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটার যে কোনও নির্বাচনের মূল ফ্যাক্টর। এই বিধানসভা আসনে এক সময় আরএসপির শক্ত ঘাঁটি ছিল। কিন্তু ২০১১ সালে কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেসের জোট প্রার্থী হিসেবে এই বিধানসভা আসনে বিধায়ক নির্বাচিত হন দেবপ্রসাদ রায়। ২০১৬ সালে তৃণমূলের সৌরভ চক্রবর্তী এককভাবে এই আসনে বিধায়ক নির্বাচিত হন। তবে গত লোকসভা নির্বাচনে এই আসনে বিজেপির কাছে ধাক্কা খায় তৃণমূল। অধিকাংশ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় লোকসভা নির্বাচনে ভালো ফল করে বিজেপি। সেই নিরিখে ২০২১ সালে আলিপুরদুয়ার বিধানসভা আসনকে পাখির চোখ করে ঘুঁটি সাজাচ্ছে পদ্মশিবির। এক্ষেত্রে বিজেপি এই বিধানসভা আসনে জনসংযোগের জন্য ভিন্ন কৌশল নিয়েছে।

- Advertisement -

দলীয় সূত্রে খবর, আলিপুরদুয়ার-১ ব্লকের শালকুমার-১, শালকুমার-২, পাতলাখাওয়া, চকোয়াখেতি, মথুরা, পররপার, তপসিখাতা সহ বিভিন্ন গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় বুথে বুথে যাচ্ছেন বিজেপির কার্যকর্তারা। এজন্য তাঁরা সকালের সময়কে বেছে নিয়েছেন। দলের সব স্তরের নেতারা পৃথকভাবে রান্নার গ্যাস সহ চায়ের সরঞ্জাম নিয়ে ভোর ৫টার দিকে হাজির হচ্ছেন পাড়ায় পাড়ায়। চা তৈরি করে সেখানেই বসছে আড্ডা। কেউ কেউ শরীর চর্চাও করছেন। এসব দেখে ওই আড্ডার আসরে পাড়ার বাসিন্দাদের একাংশও শামিল হচ্ছেন। এই সুযোগে বিজেপির নেতারা কেন্দ্রীয় সরকারের নানা প্রকল্প ও সাংগঠনিক আলোচনা সেড়ে ফেলছেন। এভাবে সংগঠনের তরফে সকাল সাড়ে ৬টা পর্যন্ত এই কর্মসূচির সময় বেধে দেওয়া হয়েছে। সূত্রের খবর, গ্রামাঞ্চলে এখন ধান, আলু সহ কৃষিকাজে চরম ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন কৃষকরা। তাই বিজেপি জনসংযোগ চালাতে দিনের বদলে সকালবেলাকে বেছে নিয়েছে। এখন দলের ১০ ও ১১ নম্বর মণ্ডলেই জোরদারভাবে এই কর্মসূচি চলছে। আগামীতে বাকি মণ্ডলেও এভাবে জনসংযোগ শুরু হবে বলে বিজেপির নেতারা জানিয়েছেন।

দলের ১০ নম্বর মণ্ডল সভাপতি ক্ষিতীশ বর্মন বলেন, ‘সকালবেলায় চায়ের আড্ডার এই কর্মসূচিতে ভালো সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। প্রতিটি বুথের পাড়ায় পাড়ায় এই কর্মসূচি হচ্ছে।’ ১১ নম্বর মণ্ডল সভাপতি সাধন সাহা বলেন, ‘দিনেরবেলা কৃষকরা কাজে ব্যস্ত থাকেন। তাই ভোর থেকে সকালবেলার এই চায়ের আড্ডায় ভালো জনসংযোগ হচ্ছে।’ তবে বিজেপির এই কর্মসূচিকে গুরুত্ব দিতে চায়নি তৃণমূল কংগ্রেস। দলের আলিপুরদুয়ার-১ ব্লক সভাপতি মনোরঞ্জন দে বলেন, ‘লোকসভা ভোটের সমীকরণ এবার কাজ করবে না। আমাদেরই একাধিক জনসংযোগমূলক কর্মসূচি চলছে। এই ব্লকে বহু উন্নয়ন হয়েছে। আমরা মানুষের পাশে রয়েছি। আর বিজেপি লোক দেখানো এসব করে যাচ্ছে।’