‘চায় পে চর্চা’য় মুখ্যমন্ত্রীর উত্তরবঙ্গ সফরকে কটাক্ষ সায়ন্তন বসুর

413
ফাইল ছবি।

মালবাজার: চায় পে চর্চা কর্মসূচিতে যোগ দিতে এসে মুখ্যমন্ত্রীর উত্তরবঙ্গ সফরকে প্রচ্ছন্নভাবে কটাক্ষ করলেন বিজেপির রাজ্য কমিটির অন্যতম সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু। পাশাপাশি, নির্বাচন নিয়েও তৃণমূল কংগ্রেসকে তুলোধোনা করেছেন এই বিজেপি নেতা। সোমবার মাল শহরে এই কর্মসূচিতে যোগ দিতে এসে মুখ্যমন্ত্রীর উত্তরবঙ্গ সফর প্রসঙ্গে সায়ন্তনবাবু বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রী উত্তরবঙ্গে আসছেন। তিনি উত্তরবঙ্গকে সুইজারল্যান্ড বানাবেন বলেছিলেন। খোঁজ নিয়ে দেখুন সুইজারল্যান্ড বানাতে পেরেছেন কিনা।’ তৃণমূল কংগ্রেসকে তুলোধোনা করে বলেন, ‘স্বচ্ছভাবে নির্বাচন হলে কোনও নির্বাচনেই জয় পাবে না তৃণমূল কংগ্রেস।’

সোমবার সকালে লাটাগুড়ি থেকে সায়ন্তনবাবু সরাসরি মালবাজারের সুভাষ মোড়ে এসে পৌঁছান। তাঁর সঙ্গে ছিলেন বিজেপির জলপাইগুড়ি জেলা কমিটির সভাপতি বাপী গোস্বামী সহ অন্যান্য নেতৃত্বরা। সুভাষ থেকে ৩১ নম্বর জাতীয় সড়ক দিয়ে হেঁটে মাল উদ্যানের সামনে এসে তিনি চা পান করেন। স্থানীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে সার্বিক বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন তিনি।

- Advertisement -

সায়ন্তনবাবু বলেন, ‘আমি আজ চায় পে চর্চা কর্মসূচিতে যোগ দিতে এসেছি। তৃণমূল কংগ্রেসের অত্যাচারের বিষয়ে খোঁজ নিচ্ছি।’ বন্ধ চা বাগান প্রসঙ্গে সায়ন্তনবাবু বলেন, ‘কেন্দ্রীয় সরকার বন্ধ চা বাগান অধিগ্রহণের উদ্যোগ নিয়েছিল। রাজ্য সরকারই আদালতের দ্বারস্থ হয়ে তা বন্ধ করেছেন।’

রাজ্যে বিজেপি ক্ষমতায় এলে কেন্দ্র এবং রাজ্য সম্মিলিতভাবে উদ্যোগ নিয়ে চা বাগানের সমস্ত সমস্যা নিরসন করবে। মাল পুরসভা সহ অন্যান্য পুর নির্বাচন নিয়ে সায়ন্তনবাবু বলেন, ‘পরিবেশ ও পরিস্থিতি অনুযায়ী স্পষ্ট পুর নির্বাচন সঠিকভাবে হলে তৃণমূল কংগ্রেস একটি আসনও পাবে না। তৃণমূল কংগ্রেসকে হয় পঞ্চায়েত নির্বাচনের মতন ব্রিডিং করে জিততে হবে নয়তো নির্বাচনে হারতে হবে। তাই তৃণমূল কংগ্রেস তথা রাজ্য সরকার পুর নির্বাচন পিছিয়ে দিচ্ছেন।’

বিজেপি সূত্রে খবর, এদিন শহরের ঘড়ি মোড়ে চায়ের দোকানে চায় পে চর্চা কর্মসূচিতে যোগ দেওয়ার কথা ছিল। অভিযোগ, ঘড়ি মোড় এলাকার দুটি চায়ের দোকান এদিন সকালের দিকে বন্ধই ছিল। ফলে চা পানের পূর্বঘোষিত স্থান পরিবর্তন করা হয়। এ প্রসঙ্গে সায়ন্তনবাবু বলেন, ‘আমরা শুনেছি চায়ের দোকান দুটি এদিন বন্ধ রয়েছে।’ সায়ন্তনবাবু দোকান বন্ধ থাকা নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের পাশাপাশি পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন। মাল উদ্যানের সামনে চায় পে চর্চা কর্মসূচিতে সায়ন্তনবাবু এদিন দলের সদস্য সংগ্রহ কর্মসূচি সহ অন্যান্য বিষয় নিয়ে স্থানীয় নেতৃত্ব আলোচনা করেন। এরপর তিনি দলীয় কর্মসূচিতে যোগদানের জন্য কোচবিহারের উদ্দেশ্যে চলে যান।

এদিকে, সায়ন্তনবসুর অভিযোগ এবং কর্মসূচি প্রসঙ্গে মাল শহর মণ্ডল তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি স্বপন সাহা পালটা বলেন, ‘বিজেপি ক্ষমতায় না আসার পূর্বে থেকেই জোর ও ভীতি প্রদর্শন শুরু করেছে। তৃণমূল কংগ্রেস কোনও চায়ের দোকান বন্ধ রাখতে বলেনি। দু-একটি দোকানদার ব্যক্তিগত কারণবশত বন্ধ রাখতেই। পারে সেটা ওই দোকানদারদের বিষয়।’ স্বপনবাবু বলেন, ‘রাজ্যের মানুষ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে মা-মাটি-মানুষের সরকারের সঙ্গেই আছেন। বিজেপি নেতৃত্বের বিভ্রান্তি ছড়ানোর অপচেষ্টাতে কোনও লাভই হবে না।’