বিজেপি নেতার ওপর হামলার চেষ্টা, বাঁচাতে গিয়ে আক্রান্ত ভাই

106
জখম অসীমকে দেখতে হাসপাতালে বিজেপি নেতা

আলিপুরদুয়ার: বিজেপি নেতার ওপর হামলার চেষ্টার অভিযোগ। ওই নেতাকে বাঁচাতে গিয়ে গুরুতর জখম হলেন তাঁর ভাই। রবিবার বিকেলের এই ঘটনা ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে আলিপুরদুয়ারের পশ্চিম চেপানি গ্রামে। ঘটনায় অভিযোগের তির তৃণমূলের দিকে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তৃণমূল নেতৃত্ব। ভোটের আগে এমন ঘটনায় রাজনৈতিক চাপানউতোর শুরু হয়েছে।

অভিযোগ, এদিন বিকেলে বিজেপির জেলা সম্পাদক অর্জুন দেবনাথের ওপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলার চেষ্টা করে এক দুষ্কৃতী। অর্জুনকে বাঁচাতে গিয়ে হামলার মুখে পড়ে যান তাঁর ভাই অসীম দেবনাথ। সেই সময় অসীমকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপাতে শুরু করে ওই দুষ্কৃতী। ঘটনার সময় এলাকার বাসিন্দারা সেখানে ছুটে আসেন। এরপরই দুষ্কৃতীকে ধরে গণপিটুনি দেন তাঁরা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে শামুকতলা থানার পুলিশ পৌঁছোলে তাদের হাতে দুষ্কৃতীকে তুলে দেন স্থানীয়রা। এদিকে, গুরুতর জখম অসীমকে উদ্ধার করে আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতাল পাঠানো হয়। সেখান থেকে পরে তাঁকে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। অসীমের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে হাসপাতাল সূত্রে খবর।

- Advertisement -

পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনায় অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ধৃতের নাম চিরঞ্জিত দেবনাথ। তার বাড়ি শামুকতলা খালার পশ্চিম চেপানী গ্রামে। দলের নেতা আক্রান্ত হওয়ার ঘটনায় ক্ষোভে ফেটে পড়েন বিজেপির নেতারা। অভিযুক্ত তৃণমূলের লোক বলেও দাবি করেন তাঁরা। এদিন জখম অসীমকে আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতালে দেখতে যান বিজেপি জেলা সভাপতি গঙ্গাপ্রসাদ শর্মা, যুব মোর্চার জেলা সভাপতি বিপ্লব দাস সহ বিজেপির কার্যকর্তারা। গঙ্গাপ্রসাদ শর্মার অভিযোগ, ‘তৃণমূল নির্বাচনি লড়াইয়ে হেরে যাওয়ার ভয়ে এখন দুষ্কৃতীদের কাজে লাগিয়ে আমাদের কার্যকর্তাদের ওপর হামলার পরিকল্পনা করেছে। তাই তারা বিভিন্ন সমাজবিরোধীদের এই কাজে লাগিয়েছে। হামলার ঘটনায় নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ জানিয়েছি।’ যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। দলের নেতাদের দাবি, ওই অভিযুক্তের সঙ্গে তৃণমূলের কোনও সম্পর্ক নেই। এই ঘটনার সঙ্গে কোনও রাজনৈতিক যোগ থাকতে পারে না।