যোগীকে প্রতিবাদ চিঠি বালুরঘাটের বিজেপি সাংসদের

2838

বিশেষ সংবাদদাতা, নয়াদিল্লি : আসন্ন দুর্গাপুজোয় উত্তরপ্রদেশে নানাবিধ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে যোগী সরকার। করোনা আবহে স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তার খাতিরেই এই সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। দুর্গাপুজোয় ছাড় না দিলেও রামলীলা অনুষ্ঠান কিন্তু বহাল রেখেছেন তিনি। স্বাভাবিকভাবেই এই সিদ্ধান্তে মনঃক্ষুণ্ণ উত্তরপ্রদেশের বঙ্গ সমাজ। তাঁদের হয়ে এর আগে সরব হয়েছিলেন বাংলা থেকে নির্বাচিত রাজ্যসভা সাংসদ স্বপন দাশগুপ্ত। এবার প্রতিবাদ করলেন আরেক বাঙালি বিজেপি সাংসদ সুকান্ত মজুমদার।

বুধবার সরাসরি যোগী আদিত্যনাথকে চিঠি দেন উত্তরবঙ্গের বালুরঘাট থেকে নির্বাচিত এই সাংসদ। তিনি বলেন, সম্প্রতি মিডিয়া সূত্রে উত্তরপ্রদেশে দুর্গাপূজায় নানা নিষেধাজ্ঞার কথা জানতে পেরেছি। উত্তরপ্রদেশ সরকারের এই সিদ্ধান্তে মর্মাহত উত্তরপ্রদেশে বসবাসকারী শত শত ধর্মপ্রাণ মানুষ। তিনি চিঠিতে উল্লেখ করেছেন, আনলক পর্বে কেন্দ্রীয় সরকার ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানে ছাড়পত্র দেওয়ার পরেই সবাই দুর্গাপূজার প্রস্তুতি নিয়েছে। বাড়িতে বসে দুর্গাপুজো করার জন্য আদিত্যনাথ যে নির্দেশ দিয়েছিলেন, তারও বিরোধিতা করেন সুকান্ত মজুমদার। তিনি বলেন, দুর্গাপুজা একটি সর্বজনীন উৎসব। বাড়িতে এই পুজো করা সম্ভব নয়। তাই হাজার হাজার মানুষের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত না করে এই সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার করার জন্য আদিত্যনাথের কাছে আর্জি জানিয়েছেন।

- Advertisement -

অযোধ্যা রামমন্দিরের ভূমিপুজো নিয়ে মাতামাতি করলেও উত্তরপ্রদেশে দুর্গাপুজোয় বাধ সেধেছেন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপূজা যোগীর রাজ্যে বন্ধ করায় ক্ষোভের আগুন ছড়িয়েছে উত্তরপ্রদেশের প্রবাসী বাঙালি মহলে। যোগী আদিত্যনাথের দাবি, করোনা সংক্রমণের কথা ভেবেই এই সিদ্ধান্ত। চাইলে বাড়িতে দুর্গার মূর্তি প্রতিষ্ঠা করে পুজো করুন। কিন্তু রাস্তায় প্যান্ডেল বানিয়ে পুজো করা যাবে না। তবে ছাড় পেয়েছে রামলীলা। যোগী সরকারের বক্তব্য, এটি রাজ্যের প্রাচীন উৎসব। সেটি বন্ধ করা সম্ভব নয়। কিন্তু সরাসরি দুর্গাপুজোয় নিষেধাজ্ঞা জারি করে ঘরে-বাইরে সমালোচনার মুখে পড়েছে যোগী সরকার। উঠছে বাঙালি বিদ্বেষের অভিযোগ। সুকান্তের এই ভূমিকায় সাধুবাদ জানিয়েছেন প্রায় সমস্ত রাজনৈতিক মহলের প্রতিনিধিরা।