পুলিশ হেপাজতে নাবালকের রহস্য মৃত্যুু, প্রতিবাদে মল্লারপুরে মিছিল বিজেপির

273

আশিস মণ্ডল, রামপুরহাট: পুলিশ হেপাজতে নাবালকের মৃত্যুর ঘটনায় সিবিআই তদন্তের দাবিতে রাষ্ট্রপতির কাছে দরবারের হুঁশিয়ারি দিলেন বিজেপির যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি তথা সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। তদন্তের দাবিতে নভেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে রাজ্যের সমস্ত থানায় স্মারকলিপি জমা দেবে বিজেপি। কলকাতার রাজপথে মিছিল করা হবে। শনিবার বিজেপির ডাকা বন্ধ ছিল সর্বাত্মক।

বৃহস্পতিবার রাতে বীরভূমের মল্লারপুর থানার লক আপে অস্বাভাবিক মৃত্যু হয় শুভ মেহেনা (১৪) নামে এক নাবালকের। পুলিশের দাবি, সে আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু মৃতের আত্মীয়স্বজন এবং প্রতিবেশীদের দাবি, চুরির অভিযোগে তিনদিন ধরে আটকে রেখে পুলিশ শুভকে মারধর করেছে। পুলিশের মারেই মৃত্যু হয় তার। একই দাবি বিজেপি, সিপিএম ও কংগ্রেসের।

- Advertisement -

বিজেপির দাবি, নিহত নাবালকের পরিবার তাদের সমর্থক। এই দাবিতে শনিবার মল্লারপুর শহরে ১২ ঘণ্টা বনধের ডাক দেয় বিজেপি। সেই সঙ্গে সৌমিত্র খাঁর নেতৃত্বে থানা ঘেরাও কর্মসূচি নেওয়া হয়। এদিন সকালেই বিজেপি পার্টি অফিসে পৌঁছে যান সৌমিত্র খাঁ। সেখান থেকে মিছিল করে মল্লারপুর বাজার হয়ে থানার উদ্দেশ্যে রওনা হন। থানা থেকে ২০০ মিটার দূরে ব্যারিকেড করে সৌমিত্র খাঁ’দের আটকে দেয় পুলিশ। এনিয়ে পুলিশের সঙ্গে ধুন্ধুমার লেগে যায় বিজেপির। দলের জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মণ্ডলের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। বিজেপি নেতৃত্ব রাস্তার উপর বসে বিক্ষোভ দেখাতে থাকে।

সৌমিত্র খাঁ বলেন, ‘ওই নাবালককে মেরে ফেলা হয়েছে। যেহেতু নাবালকের পরিবার বিজেপি করে। তাই অনুব্রত মণ্ডলের নির্দেশে এই কাজ করা হয়েছে। রাজ্যে জঙ্গলের রাজত্ব চলছে। আমরা চাই, অভিযুক্ত পুলিশ অফিসারকে বরখাস্ত করা হোক। বিচারবিভাগীয় তদন্ত করতে হবে। তদন্তের ভার সিবিআইয়ের হাতে দিতে হবে।’ তাঁর দাবি, পুলিশ যদি অপরাধী না হত তাহলে নাবালকের মা-বাবাকে ভোর রাতে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যেত না। পুলিশ এবং শাসক দল মিলে তাঁদের মুখ খুলতে দিচ্ছে না। শনিবার ভোরেও নাবালকের বাবা-মাকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আমরা ঘটনার প্রতিবাদ করছি।’ যদিও অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে তৃণমূল।

এদিকে, ঘটনার তদন্তের দাবি জানিয়ে এদিন জেলার বিভিন্ন এলাকায় মিছিল করে সিপিএম। কংগ্রেসের তরফে সিবিআই তদন্তের দাবিতে রাজ্যপালের কাছে চিঠি পাঠানো হয়। দলের জেলা সভাপতি মিল্টন রশিদ বলেন, ‘পুলিশ ও তৃণমূল এখন মিলে মিশে একাকার হয়ে গিয়েছে। তাই নাবালকের মৃত্যু নিয়ে পুলিশ এবং তৃণমূল এক সুরে কথা বলছে। আর বিজেপি মৃত্যু নিয়ে নোংরা রাজনীতি করছে। আমরা চাই, ঘটনার সিবিআই তদন্ত হোক।’

অন্যদিকে, বীরভূমের মল্লারপুরে পুলিশ হেপাজতে নাবালকের অস্বাভাবিক মৃত্যুর প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখানোয় ১৮ জন বিজেপি নেতা সহ ২৫০ জনের বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা দায়ের করেছে মল্লারপুর থানার পুলিশ। মল্লারপুর থানার ওসি বৃকদর সান্যালের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এই মামলা দায়ের করা হয়েছে।

জেলা পুলিশ সুপার শ্যাম সিং বলেন, ‘তদন্ত চলছে। তা শেষ না হওয়া পর্যন্ত কিছু বলা যাবে না। এদিন বিজেপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।’