বিজেপির কর্মসূচি গাজোলে

0

গাজোল: দল পরিবর্তন তারপর আবার পরিবর্তন বিজেপি এবং তৃণমূলের মধ্যে এই দলবদলের খেলায় এখন জমজমাট গাজোল। গত রবিবার বিকেলে গাজোলের বৈরগাছি-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের রামনগর হাই মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে তৃণমূলের কর্মসূচিতে যোগদান করেছিলেন বিজেপির জেলা সম্পাদক গোবিন্দ চন্দ্র মণ্ডলের দুই ভাইপো এবং এক আত্মীয়। ঘটনার ৪৮ ঘণ্টা কাটতে না কাটতেই এক ভাইপোকে আবার নিজের দলে টানলেন গোবিন্দ বাবু।মঙ্গলবার রাতে গোবিন্দ বাবুর হাত ধরে আবার বিজেপিতে ফিরে আসেন এক ভাইপো কাশীনাথ মণ্ডল। যদিও বাকি দুইজন এখনও পর্যন্ত তৃণমূলে রয়েছেন। আর এই ঘটনাকে ঘিরে রাজনৈতিক তরজা শুরু হয়েছে গাজোলে। গোবিন্দ বাবুর অভিযোগ ভয় এবং প্রলোভন দেখিয়ে ওদের দলে আনা হয়েছিল। তারপর ওরা নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে আমাকে ফোন করেছিল।

তারপর আবার বিজেপিতে ফিরে এসেছে। তৃণমূলের তরফে আমাদের দলের অনেককে এই রকম ভয় এবং প্রলোভন দেখিয়ে নিজেদের দলে টানার চেষ্টা করছে। কিন্তু গোটা রাজ্য জুড়েই তৃণমূলের সংগঠন ভাঙছে। এই অবস্থায় দাঁড়িয়ে স্রোতের উলটো দিকে গিয়ে কেউ তৃণমূলে যোগদান করবে না। উলটে তৃণমূলের অনেকেই বিজেপিতে যোগদান করার জন্য আমাকে ফোন করছে। আসলে বিজেপি জেলা সভাপতির নাম জড়িয়ে প্রচারের আলোয় থাকার চেষ্টা করছে তৃণমূল। আর তার জন্যই আমাদের আত্মীয়দের যোগদানের বিষয়টি কে বড় করে প্রচার করছে তাঁরা। অন্যদিকে তৃণমূলের ব্লক সভাপতি মানিক প্রসাদ জানালেন যে তিনজন বিজেপির প্রতি বীতশ্রদ্ধ হয়ে আমাদের দলে যোগদান করেছিল তার মধ্যে একজন কাশীনাথ মণ্ডল বিজেপিতে যোগ দিয়েছে। বাকি দুইজন তৃণমূলেই রয়ে গিয়েছে। আমাদের কাছে যা খবর তাতে, বিজেপির তরফে ওদের ওপর প্রচণ্ড চাপ সৃষ্টি করা হয়েছিল। সেই চাপ কাশীনাথ নিতে পারেনি। কিন্তু বাকি দুই ভাই তৃণমূলে রয়েছে। এদিন তাঁরা বিভিন্ন জায়গায় তৃণমূলের কর্মসূচি পালন করছে। আগামী দিনে গাজোল ব্লকে বিজেপিতে আরও ভাঙন হবে।

- Advertisement -