ফালাকাটায় বুথ নির্বাচনী কাজ শুরু বিজেপির

354

ফালাকাটা: ফালাকাটায় একাধিক কমিটি গঠন নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের কোন্দল যখন অব্যাহত, তখন ঘর ঘুছিয়ে নিচ্ছে বিজেপি। বুথ স্তর পর্যন্ত শক্তিশালী নির্বাচনী কাজ শুরু করে দিয়েছে পদ্ম শিবির। এজন্য নেতাকর্মীদের ২৫ রকমের কার্যকলাপের তালিকা তৈরি করে দেওয়া হয়েছে। নানা স্তরের নেতাদের দায়িত্ব বন্টন থেকে শুরু করে বুথের শ্রেণিগত বিভাগ, পূর্বের নির্বাচনী তথ্য, কোন কোন কর্মসূচি কীভাবে পালন করতে হবে,বিভিন্ন স্তরের মানুষের সংস্পর্শে কীভাবে আসতে হবে,বুথের দেওয়াল লিখন সহ ২৫ রকমের কার্যকলাপ চালানোর নির্দেশ দিয়েছে বিজেপি। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনকে লক্ষ্য করে দলের নির্দেশ অনুযায়ী মন্ডল, শক্তিকেন্দ্র ও বুথ স্তরে সেভাবেই ঝাপিয়ে পড়েছেন বিজেপির নেতারা।

বিজেপির জেলা সহ সভাপতি জয়ন্ত রায় বলেন, ‘আমাদের সাংগঠনিক কাজ সারা বছর ধরেই চলতে থাকে। তবে নির্বাচনর সামনে বুথ স্তরে তালিকা তৈরি করে কাজ চলছে। ফালাকাটায় সাংগঠনিক অবস্থান যথেষ্ট ভালো। তাই জেতার ক্ষেত্রে আমরা আশবাদী।’

- Advertisement -

সূত্রের খবর, এই বিধানসভা কেন্দ্রের শীর্ষ, মাঝারি থেকে শুরু করে বুথ স্তরের প্রত্যেক নেতাকেই গাইড লাইন মেনে নির্বাচনী কাজগুলি করতে বলা হয়েছে। বিজেপি সব স্তরের নেতাকেই কাজে লাগাচ্ছে।

ইতিমধ্যে ফালাকাটায় বিজেপির সংগঠন ঢেলে সাজানো হয়েছে। এই কেন্দ্রে দলের চারটি মন্ডল কমিটি,একাধিক শক্তিকেন্দ্র ও ২৬৬ টি বুথ কমিটি রয়েছে। সূত্রের খবর, সম্প্রতি দল ফালাকাটার প্রতিটি স্তরে কীভাবে নির্বাচনী কাজ করতে হবে তা ঠিক করে দিয়েছে। এক্ষেত্রে ২৫ রকমের কাজের তালিকা তৈরি হয়েছে।

সেই তালিকার প্রথমেই বলা হয়েছে যে, মন্ডল স্তর ও মোর্চা পদাধিকারীদের পাঁচটি করে বুথের দায়িত্ব নিতে হবে। মিসড কলের মাধ্যমে সদস্যতা অভিযান চালিয়েছিল বিজেপি। সেই তথ্য যাচাই করে আপডেট করতে হবে। গত দুটি লোকসভা ও বিধানসভা নির্বাচনের তথ্য বুথ অনুসারে সংগ্রহ করতে বলা হয়েছে। সমর্থক বা পূর্বের প্রাপ্ত ভোটের নিরিখে প্রত্যেক বুথকে এবিসিডি ভাগে ভাগ করে নেতাদের দায়িত্ব নিতে হবে। সামাজিক স্থিতি অনুসারে বুথ কমিটি সাজানোর কথা বলা হয়েছে।

আবার প্রতি বুথে নতুন করে ২০ জনকে সদস্য করতে হবে। বাছাই করা ২-৩ জন নেতা থাকবে, যাঁরা সব সময় বুথকে সক্রিয় রাখবে। প্রতি বুথে দলের ৬টি বিশেষ দিন উদযাপন করা বাধ্যতামূলক। মোবাইল নম্বর সহ বুথ সদস্যদের তালিকা রাজ্য স্তরে পৌঁছাবে। আবার বিভিন্ন স্তরের মানুষের সঙ্গে সমন্বয় তৈরির নির্দেশও রয়েছে। সমবায় ব্যাংক, স্বনির্ভর গোষ্টী, এনজিও’র সঙ্গে নেতাদের যোগাযোগ রাখতে হবে। মন্দির, আশ্রমের পুরোহিতদের সঙ্গেও মিশতে হবে।

গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে গ্রাম পঞ্চায়েতগুলিতে হেরে যাওয়া ও নির্বাচিত পঞ্চায়েত সদস্যদের মাধ্যমে সদস্য সংগ্রহ অভিযান অব্যাহত থাকবে। অন্যদলের বুথ কর্মীদের দিকেও নজর রাখতে হবে। এছাড়াও প্রত্যেক বুথে কতজনের মোটর সাইকেল আছে, কতজনের স্মার্ট ফোন রয়েছে, কেন্দ্রীয় প্রকল্পের সুবিধাপ্রাপ্ত উপভোক্তাদের নামের তালিকা তৈরির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রতি বুথে ৫টি দেওয়াল লিখন করতে হবে। বিজেপি বরাবরই সোশ্যাল মিডিয়াকে গুরুত্ব দেয়। তাই প্রতি বুথে অন্তত ২৫০ জনকে নিয়ে হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ তৈরি করারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।