তৃণমূল-পুলিশি সন্ত্রাসের জের! মাইকিং করে দল ছাড়ার ঘোষণা বিজেপি কর্মীদের

21

বোলপুর: মাইকিং করে আনুষ্ঠানিকভাবে গেরুয়া শিবিরের সঙ্গে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন লাভপুর বিধানসভার বেশকিছু বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। তবে শুধু বিজেপির সংশ্রব ত্যাগ করা নয়, ক্ষমা প্রার্থণা করে তৃণমূলে যোগদান করার ইচ্ছা প্রকাশও করেন তাঁরা। ঘটনাটি বীরভূমের লাভপুরের।

মঙ্গলবার লাভপুরের বাজার এলাকায় পৌঁছে কয়েকজন কিশোর ও তরুণ মাইকিং করে আনুষ্ঠানিকভাবে বিজেপি ছাড়ার কথা স্পষ্ট করেন। মাইকিং করে বলা হয়, ‘আমরা লাভপুর বিধানসভার বিপ্রটিকুরী গ্রাম পঞ্চায়েতের বাসিন্দা। আমরা বিজেপি কর্মীবৃন্দ ২০২১ সালে উন্নয়ন নিয়ে মিথ্যা প্রচার করে গ্রামে উত্তেজনা ও গণ্ডগোলের সৃষ্টি করেছিলাম। এই মিথ্যা প্রচার করার জন্য ক্ষমা চাইছি। শপথ করছি ভবিষ্যতে এই মিথ্যা অপপ্রচার আর করব না। গ্রামবাসীদের কাছে ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। সেই সঙ্গে বিধায়কেরে কাছে অনুরোধ আমরা যেন মা মাটি মানুষের সরকারের উন্নয়নের সঙ্গে থেকে কাজ করতে পারি এবং তৃণমূলে যোগদান করতে পারি। জয় বাংলা। মা মাটি মানুষ জিন্দাবাদ।’

- Advertisement -

শুধু বাজার এলাকা নয়, গ্রামের বিভিন্ন প্রান্তে তারা প্রচার চালান। যদিও এদিন মাইকিং করে স্পষ্ট করা হয়নি কারা কারা বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান করতে চলেছেন। ঘটনায় জোর জল্পনা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। এনিয়ে অবশ্য বিজেপি নেতারা কোনও মন্তব্য করতে চাননি।

জেলা সভাপতি ধ্রুব সাহা বলেন, ‘লাভপুর বিধানসভা এলাকায় গণতন্ত্র বলে কিছু নেই। আমাদের নেতা কর্মীরা ভয়ে মোবাইল বন্ধ করে রেখেছেন। কারও বাড়ি আমরা যেতে পারছি না। কারণ, কারও বাড়ি গেলে রাতে তাদের তুলে নিয়ে পেটাবে। আমরা থানায় গেলাম। কিন্তু কোনও সৌজন্যতা দেখায়নি পুলিশ। আমরা কোন রাজ্যে বসবাস করছি বুঝতে পারছি না। বিষয়টি রাজ্যে নেতৃত্বদের জানাব।’

এবিষয়ে লাভপুরের বিধায়ক অভিজিৎ রায় ওরফে রানা সিংহকে ফোন করা হলেও কোনও বক্তব্য পাওয়া যায়নি।