কোনও শিল্প হয়নি, হয়েছে মদের দোকান: ভারতী ঘোষ

127

বক্সিরহাট: নির্বাচনি জনসভায় যোগ দিয়ে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তাঁর সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন বিজেপির রাজ্য সহ সভাপতি তথা প্রাক্তন আইপিএস ভারতী ঘোষ। সোমবার তুফানগঞ্জ বিধানসভার বিজেপি প্রার্থী তথা দলের কোচবিহার জেলা সভাপতি মালতী রাভা রায়ের সমর্থনে বক্সিরহাট থানার তল্লিগুড়ি ও রামপুরে জনসভা করেন ভারতী। এদিন দুটি সভাতেই শুরু থেকে তৃণমূল নেত্রীর বিরুদ্ধে আক্রমণাত্বক মেজাজে ছিলেন তিনি।

এদিন সভার শুরুতেই ভারতী ঘোষ বলেন, ‘দুয়ারে সরকার ঘরে ঘরে বেকার। মমতার সরকারের জন্য রাজ্যে বেকারের সংখ্যা দ্বিগুণ বেড়েছে। তাঁর আমলে কোনও শিল্প হয়নি, হয়েছে মদের দোকান। বেকাররা কাজ না পেয়ে ভিনরাজ্যে গিয়েছে। আর দিদি বেকারদের বলেছে, চপশিল্প, মুড়িশিল্প তৈরি করতে। বেকাররা কি দিনে মুড়ি ও চপ খেয়ে রাতে চুল্লু খেয়ে কাটাবে।’ তিনি বলেন, ‘মোদি সরকার রাজ্যে শিল্পকেন্দ্র তৈরির জন্য কোটি কোটি টাকা দিলেও একটিও শিল্পকেন্দ্র তৈরি হয়নি। কারণ দিদিভাই সব টাকা খেয়ে নিয়ে ভাই, ভাইপোদের জন্য কোটি কোটি টাকার প্রাসাদ বানিয়ে দিয়েছে। আর রাজ্যের গরিব মানুষেরা না খেতে পেতে শুকিয়ে কাঠ হয়েছে।’

- Advertisement -

ভারতী বলেন, ‘কেন্দ্র সরকারের একগুচ্ছ প্রকল্প তৃণমূল সরকার চালাতে না দিয়ে মানুষকে বিভিন্ন দিক থেকে বঞ্চিত করে রেখেছে আর কিছু প্রকল্প নিজেদের নামে চালিয়ে তা থেকে কাটমানি খেয়েছে, সিন্ডিকেট রাজ চালিয়েছে। এর বিরুদ্ধে কেউ কিছু বলতে গেলে তাকে গাঁজার মামলা সহ মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়েছে। তাই অনেক শিক্ষিত বেকার যুবক আজ মিথ্যা মামলায় জেলে পচছেন।’ তিনি বলেন, ‘মমতা রাজ্যের মানুষকে ভিক্ষুক ভাবেন। তাই তাদের সামান্য ভাতা দু’টাকার চাল দিয়ে অমর্যদা করছে। কিন্তু রাজ্যের মানুষ ভিক্ষা চায় না। তারা মর্যাদার সঙ্গে কাজ করে বাঁচতে চায়। সেকারণে রাজ্যে কৃষির উন্নয়ন ও শিল্প স্থাপন করে মানুষের অন্ন সংস্থান করতে চায় বিজেপি। আর তাই রাজ্যে ডাবল ইঞ্জিন সরকার গড়তে মালতী রাভাকে একলক্ষ ভোটে জেতানোর আহ্বান জানান।’

ভারতী বলেন, ‘মমতা বুঝতে পেরেছেন রাজ্য থেকে মানুষ তাঁকে উৎখাত করবে। আর সেকারণে তাঁর মাথা গরম হয়ে মুখ দিয়ে পশুপাখির ডাক বের হচ্ছে।’ এদিনের সভা দুটিতে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রাজ্য কমিটির সহ সভাপতি রাজকমল পাঠক, সংখ্যালঘু মোর্চার রাজ্য সভাপতি আলি হোসেন প্রার্থী মালতী রাভা রায়, তুফানগঞ্জ ২ বিধানসভার সংযোজক উৎপল দাস সহ সংযোজক বিমল পাল প্রমুখ।