ভোটের মুখে মালদা জেলা পরিষদে বিজেপির থাবা

103

মালদা: শুভেন্দু ম্যাজিকে মালদা জেলা পরিষদ হাতছাড়া তৃণমূলের। সভাধিপতি, চার কর্মাধ্যক্ষ সহ ১৪ সদস্য ঘাসফুল ছেড়ে যোগ দিলেন পদ্মশিবিরে। যদিও তৃণমূল জেলা সভানেত্রী মৌসুম নূরের দাবি, জেলা পরিষদে এখনও সংখ্যাগরিষ্ঠ তৃণমূলই।

সোমবার বিজেপির রাজ্য কার্যালয়ে হেস্টিংসে আন্তর্জাতিক নারী দিবসে তৃণমূলের চার কর্মাধ্যক্ষ সরলা মুর্মু, পায়েল খাতুন, পিংকি সরকার মহাতো, চম্পা মণ্ডল, খোদ সভাধিপতি গৌরচন্দ্র মণ্ডল সহ ১৪ জন জেলা পরিষদ সদস্য পদ্মশিবিরে যোগ দেওয়ায় ভোট হাতছাড়া হল তৃণমূলের। মালদা জেলা পরিষদের ম্যাজিক ফিগার ১৯। সেই ফিগারের পৌঁছোলো বিজেপি। হঠাৎ করে এই ঘটনায় তৃণমূল সভানেত্রী মৌসুম নূর এবং জেলা পরিষদের দলনেতা শামসুল হক জরুরি ভিত্তিতে দলীয় সদস্যদের নিয়ে বৈঠকে বসেন, পরে মৌসম নূর বলেন, ‘জেলা পরিষদে গরিষ্ঠতা তৃণমূলের রয়েছে। বিজেপি এখানে টাকার খেলা খেলেছে। আমরা নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ জানাব। যাঁরা গিয়েছেন তাঁরা চাওয়া পাওয়ার জন্যই গিয়েছেন। এতে দলের কোনও ক্ষতি হবে না। সভাধিপতিকে সাসপেন্ড করার জন্য রাজ্য নেতৃত্বকে জানিয়েছি।’

- Advertisement -

যদিও পদ্মশিবিরে সদ্য যোগদানকারী সভাধিপতি গৌরচন্দ্র মণ্ডল বলেন, ‘১৪ জন সদস্য লিখিতভাবে ডিভিশনাল কমিশনারকে দলের ত্যাগের কথা জানিয়েছেন। বিজেপির নিজস্ব পাঁচজন সদস্য রয়েছেন। ফলে ম্যাজিক ফিগার ১৯-এ আমরা পৌঁছে গিয়েছি। এদিন থেকে জেলা পরিষদের ভোট তৃণমূলের দখলে আর থাকল না।’

মালদা জেলা পরিষদের মোট সদস্য সংখ্যা ৩৮। একটি আসনে নির্বাচন হয়নি। মোট ৩৭ আসনের মধ্যে বিজেপির উজ্জ্বল চৌধুরির যোগদানের পরে তৃণমূলের দখলে ছিল ৩১টি আসন। বিজেপির ৫টি এবং কংগ্রেসের ১টি আসন। সোমবার বিজেপির কলকাতার দলীয় কার্যালয় হেস্টিংসে মালদা জেলা পরিষদের ১৪ সদস্যের যোগদান হয়। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ, শুভেন্দু অধিকারী, মুকুল রায়ের হাত ধরে যোগদান করেন তাঁরা। ফলে বিজেপির নিজস্ব ৫ সদস্য নিয়ে মোট সংখ্যা হল ১৯। অর্থাৎ ম্যাজিক ফিগার ১৯-এ পৌঁছোলো বিজেপি।