ফালাকাটায় সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ে বিজেপির প্রশিক্ষণ শিবির

292

ফালাকাটা: আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে ফালাকাটাকে পাখির চোখ করেছে বিজেপি। তাই তৃণমূল কংগ্রেসকে রুখতে সবরকমের কৌশল নিচ্ছে পদ্মশিবির। বিজেপি বরাবরই সোশ্যাল মিডিয়াকে গুরুত্ব দেয়। এখন সমাজের অধিকাংশ ভোটারই সোশ্যাল মিডিয়ার সঙ্গে যুক্ত। তাই বিজেপির সব স্তরের নেতাকর্মীদের সোশ্যাল মিডিয়া সম্পর্কে দক্ষ হওয়া প্রয়োজন। এজন্য সোশ্যাল মিডিয়াকে নিয়ে দলের কার্যকর্তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া শুরু করল গেরুয়া শিবির। শনিবার ফালাকাটায় দলের দুটি মণ্ডল কমিটির কর্মকর্তাদের এব্যাপারে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। এদিকে বিজেপির জেতার পথ মসৃন করতে ফালাকাটায় ময়দানে নেমেছে সংঘ পরিবার। শহরের এক প্রান্তে হিন্দু জাগরণ মঞ্চেরও প্রশিক্ষণ হয় বলে জানা গিয়েছে।

২০১৮’র পঞ্চায়েত ও ২০১৯’র লোকসভা নির্বাচনে ফালাকাটায় তৃণমূল কংগ্রেসকে ধাক্কা দেয় বিজেপি। গত লোকসভা নির্বাচনে এই বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের থেকে ২৭ হাজার ভোট বেশি পাওয়ায় বিজেপি এবার ফালাকাটা দখল করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। এক্ষেত্রে আলিপুরদুয়ার জেলার পাঁচটি বিধানসভা কেন্দ্রের মধ্যে ফালাকাটায় বিজেপির প্রস্তুতি অনেক আগে থেকেই শুরু হয়। কারণ, গত বছর ৩১ অক্টোবর প্রয়াত হন ফালাকাটার তৃণমূলের বিধায়ক অনিল অধিকারী। তারপর এই আসনে উপনির্বাচনের সম্ভাবনা দেখা দেয়। কিন্তু ২০২১’র বিধানসভা নির্বাচন দোরগোড়ায় থাকায় এই উপনির্বচন স্থগিত হয়ে যায়। তাই অনেক আগে থেকেই এখানে বিজেপির নির্বাচনী কার্যকলাপ চলছে। এখন আরও বেশি করে ঘুঁটি সাজাচ্ছে বিজেপি। এক্ষেত্রে সোশ্যাল মিডিয়াকে প্রচারের অন্যতম হাতিয়ার করতে চাইছে পদ্মশিবির।

- Advertisement -

দলীয় সূত্রে খবর, ফালাকাটায় বিজেপির সাংগঠনিকভাবে চারটি মণ্ডল কমিটি রয়েছে। এই মণ্ডল কমিটির নিয়ন্ত্রণে রয়েছে একাধিক শক্তিকেন্দ্র ও বুথ কমিটি। প্রতিটি স্তরেই বিজেপির সংগঠন ঢেলে সাজানো হয়েছে। কিন্তু বুথ স্তরে এখনও দলের অনেক কার্যকর্তাই আছেন, যাঁরা সোশ্যাল মিডিয়া সম্পর্কে ততটা ওয়াকিবহাল নন। আবার অনেক ক্ষেত্রে দলের নেতাদের একাংশ গাইড লাইন না মেনে সোশ্যাল মিডিয়ায় অতি সক্রিয়তার পরিচয় দেন। ভোটের আগে যাতে সব কিছুই দলীয় গাইডলাইন মেনে হয়, সেজন্য কার্যকর্তাদের প্রশিক্ষণের উদ্যোগ নিয়েছে বিজেপি। দলের বাছাই করা জেলা স্তরের একটি প্রতিনিধি দল সোশ্যাল মিডিয়া সম্পর্কে সম্প্রতি বাইরে গিয়ে প্রশিক্ষণ নিয়ে এসেছে। সূত্রের খবর, প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত ও দক্ষ ওইসব নেতারাই এখন মণ্ডল স্তরে প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন।

গতকাল বিজেপির ১৩ ও ১৪ নম্বর মণ্ডলে সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ে ওই প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। সেখানে বুথ, শক্তিকেন্দ্র ও সংশ্লিষ্ট মণ্ডল স্তরের সব পদাধিকারিরাই উপস্থিত ছিলেন। বিধানসভা নির্বাচনের আগে কীভাবে সোশ্যাল মিডিয়াকে প্রচারের কাজে ব্যবহার কর‍তে হবে, কীভাবে সোশ্যাল মিডিয়ায় জনসংযোগ বাড়াতে হবে এবং এক্ষেত্রে কী কী সতর্কতা মেনে দলের গাইডলাইন অনুযায়ী কাজ করতে হবে তা এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কার্যকর্তাদের শেখানো হয়। এদিকে কিছুটা গোপনে ফালাকাটায় কাজ চালিয়ে যাচ্ছে আরএসএস। সংঘ পরিবারের একাধিক সংগঠন ঘর গুছিয়ে নিচ্ছে। তাই এদিন শহরে হিন্দু জাগরণ মঞ্চের তরফেও একটি প্রশিক্ষণ শিবির অনুষ্টিত হয়। তবে এই মঞ্চের কর্মসূচি নিয়ে প্রকাশ্যে কেউ মন্তব্য করেননি। সোশ্যাল মিডিয়ার প্রশিক্ষনের বিষয়টি বিজেপি স্বীকার করেছে।

দলের জেলা সাধারণ সম্পাদক দীপক বর্মন বলেন, শনিবার ১৩ ও ১৪ নম্বর মণ্ডলে সোশ্যাল মিডিয়া নিয়ে কার্যকর্তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। জেলার দক্ষ নেতারা এই প্রশিক্ষণ দিয়েছেন। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে দলের প্রচারমূলক কাজ চলতে থাকবে।