বিজেপি যুব মোর্চার বিক্ষোভ ঘিরে ধুন্ধুমার

212

কলকাতা: বিদ্যুতের অসম্ভব দাম, র‍্যাশনের চাল চুরি, আমপান কবলিত এলাকার ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ না দেওয়া ও সর্বোপরি দলের রাজ্য সভাপতির ওপর হামলার প্রতিবাদে বুধবার বিজেপি যুব মোর্চার দূরত্ব বজায় রেখে মানববন্ধন সৃষ্টির কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে সারাদিন দৌড়ে বেড়াতে হল পুলিশকে। মঙ্গলবারই বিজেপি যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি তথা সাংসদ সৌমিত্র খাঁ ঘোষণা করে দিয়েছিলেন, এরাজ্যের বিদ্যুতের মাশুল ইউনিট প্রতি চার টাকার মধ্যে নিয়ে আসা ও লকডাউনের দরুণ চাকরি ও ব্যবসার অবস্থা খারাপ।সেই কারণে তিন মাসের বিদ্যুতের বিল মুকুব করার দাবিতে তাঁরা শিয়ালদা, শ্যামবাজার, হাজরা ও হাওড়া ব্রিজ থেকে ধর্মতলা পর্যন্ত ছয় ফুট করে দূরত্ব বজায় রেখে মানববন্ধনে সামিল হবেন। সেই কর্মসূচি মোকাবিলায় এদিন দুপুর থেকেই শিয়ালদা, হাজরা ও ব্রেবোর্ন রোডে ব্যাপক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছিল।

কলকাতা পুলিশের তরফে সম্প্রতি গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুসারে বিক্ষোভকারীরা নির্দিষ্ট জায়গায় গিয়ে হাজির হওয়ার আগেই তাঁদের গ্রেপ্তার করে নেওয়া শুরু করে। আর পুলিশের সেই কাজকে ঘিরে বিক্ষোভকারীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। তবে পুলিশ আগেভাগেই তাঁদের গ্রেপ্তার করে নেওয়ায় জনতা যুব মোর্চার প্রস্তাবিত ওই কর্মসূচি বানচাল হয়ে যায়।

- Advertisement -

তবে শুধু কলকাতাতেই নয়, হুগলি, নদিয়া ও বর্ধমানের বেশকিছু জায়গায় ওই কর্মসূচি পালিত হয়। যুব মোর্চার সভাপতি সৌমিত্র খাঁ দলের রাজ্য দপ্তরে সাংবাদিকদের জানান, রাজ্য সরকার এ রাজ্যে কোনওভাবেই তাঁদের কোনও বিক্ষোভ সমাবেশ করতে দিচ্ছে না। এদিন তাঁরা বিপর্যয় মোকাবিলা আইন মেনে বিক্ষোভ দেখাবার কর্মসূচি নেওয়া সত্ত্বেও পুলিশ তাঁদের দলীয় কর্মীদের আগেভাগে গ্রেপ্তার করে সেই কর্মসূচি বানচাল করে দিয়েছে। তবে এভাবে তাঁদের দাবিয়ে রাখা যাবে না বলেই তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন।