নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প পেপারের কালোবাজারি, বর্ধমানে ধৃত ২

154

বর্ধমান: নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প পেপারের কালোবাজারি চক্রে জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেপ্তার দুই। ধৃতরা বাঁকুড়ার ইন্দাশ থানার মহেশপুরে সুশীল চক্রবর্তী ও পূর্ব বর্ধমানের ভাতার থানার মাহাচান্দারের অনুপ মুখোপাধ্যায়। পুলিশের দাবি, জেরায় ধৃতরা স্ট্যাম্প পেপারের কালোবাজারি চক্রে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।  সুনির্দিষ্ট ধারায় মামলা রুজু করে পুলিশের তরফে ধৃতদের বৃহস্পতিবার বর্ধমান আদালতে পেশ করা হলে তদন্তের স্বার্থে তিনদিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেয় আদালত।

পুলিশ সূত্রে খবর, বেশ কিছুদিন ধরে নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পের কালোবাজারির অভিযোগ উঠছিল। এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য জেলার অতিরিক্ত জেলাশাসক (সাধারণ) অনির্বাণ কোলে নির্দেশ দেন। তার ভিত্তিতে বুধবার দুপুরে মহকুমা শাসক (সদর) দীপ্তার্ক বসুর নেতৃত্বে দুই এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ও ট্রেজারি অফিসার বর্ধমান আদালত চত্বরে অভিযান চালান। আদালত চত্বরে দু’টি গুমটি থেকে প্রচুর সংখ্যক স্ট্যাম্প উদ্ধার হয়। স্ট্যাম্প বিক্রির বৈধ কোনও কাগজপত্র ওই দুইজন দেখাতে না পারায় প্রথমে তাদের আটক করা হয়। জেরায় কালোবাজারির কথা স্বীকার করার পর ট্রেজারি অফিসার অংশুমান চক্রবর্তী অভিযোগ দায়ের করেন। তার ভিত্তিতে প্রতারণার ধারায় মামলা রুজু করেছে পুলিশ দুই জনকে গ্রেপ্তার করে।

- Advertisement -

তদন্তকারী পুলিশ কর্তাদের অনুমান নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প পেপারের কালোবাজারিতে জড়িত রয়েছে বড়সড় চক্র। সেই চক্রের সঙ্গে কলকাতা, বীরভূম, বাঁকুড়া জেলার কয়েকজন স্ট্যাম্প ভেন্ডার জড়িত বলে প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেড়েছে পুলিশ। ধৃতদের কাছ থেকে প্রচুর সংখ্যক নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প উদ্ধার হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, উদ্ধার হওয়া স্ট্যাম্প পেপারগুলি কলকাতার আলিপুর, পার্কস্ট্রীট, বীরভূমের রামপুরহাট ও কাটোয়ার স্ট্যাম্প ভেন্ডারের নামে ইস্যু করা। ওইসব জায়গা থেকে কিভাবে বর্ধমানে স্ট্যাম্প পেপার এল তা পুলিশ খতিয়ে দেখছে।