লকডাউনে কাকভোরে কালোবাজারি তুঙ্গে

261

তপন কুমার বিশ্বাস, ইসলামপুর: লকডাউনে ইসলামপুরে কালোবাজারি তুঙ্গে। অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বাদে অন্যান্য ছোট-বড় ব্যবসায়ীরা কাকভোরে দোকান খুলে সিমেন্ট, গুটখা, বালি পাথর পৌঁছে দিচ্ছে গ্রাহকদের ঘরে।

ওয়াকিবহাল মহলের মতে, অধিকাংশ পুলিশ সাধারণত অনেক রাত পর্যন্ত ডিউটি করে পরিশ্রান্ত হয়ে ঘরে ফেরেন। ফলে ভোরের দিকে সেভাবে পুলিশি কড়াকড়ি থাকে না। সেই সময়কে বেছে নিয়েছে কয়েকজন অসাধু ব্যবসায়ী।

- Advertisement -

জানা গিয়েছে, সিমেন্ট, গুটখা মুদ্রিত মূল্যের থেকেও অনেক বেশি দামে তাঁরা বিক্রি করছেন। পুলিশি ধরপাকড় থেকে বাঁচতে ওই সব অসাধু ব্যবসায়ীরা ভোরবেলাকেই মোক্ষম সময় হিসেবে বেছে নিয়েছেন।

আরও পড়ুন: করোনায় মৃত্যু কলকাতা জাদুঘরে কর্মরত সিআইএসএফ জওয়ানের

এদিকে শহরের ব্যবসায়ীদের একাংশ জানিয়েছে, শহরের কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ী সরকারি নির্দেশিকা অমান্য করে দোকান বা গোডাউনের ঝাপ অর্ধেক খুলে ব্যবসা চালাচ্ছে। কেউ কাকভোরে ভ্যান বোঝাই করে জিনিস পাঠাচ্ছে। আবার কেউবা পিছনের দরজা খোলা রেখে দিব্যি কালোবাজারি করছে। দেখার কেউ নেই। জানা গিয়েছে, শহরে কৃষিপণ্য পরিবহনের স্টিকার দেওয়া পাথর বোঝাই লরি থেকে পাথর নামাতে দেখা যায়। তাঁরা জানান, পুলিশের সঙ্গে গোপন বোঝাপড়া না থাকলে এটা সম্ভব নয়।

এই বিষয়ে ইসলামপুর মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের মুখপাত্র দামোদর আগরওয়াল বলেন, ‘আমরা একাধিকবার জানিয়েছি। এইধরনের কাজে যেসব ব্যবসায়ীরা যুক্ত রয়েছে মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশন তাদের পাশে নেই। তিনি এইবিষয়ে কড়া পুলিশি পদক্ষেপের দাবি তুলেছেন।’

উত্তর দিনাজপুর জেলার ডেপুটি সিএমওএইচ-২ দেবাশীষ মণ্ডল জানান, নিষিদ্ধ গুটখা বিক্রি কোনও অবস্থাতে বরদাস্ত করা হবে না।
তবে এইবিষয়ে ইসলামপুর থানার আইসি শমীক চট্টোপাধ্যায় জানান, বিষয়টি জানা ছিল না। এখন থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কাউকে রেয়াত করা হবে না।