বোর্ড গঠনের মূহুর্তে তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্যাকে ঘিরে বিক্ষোভে দলীয় কর্মীরা

83

ক্রান্তি: নব গঠিত ক্রান্তি পঞ্চায়েত সমিতির বোর্ড গঠনকে কেন্দ্র করে প্রকাশ্যে তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দোল। একদিকে সোমবার ক্রান্তি ব্লক কার্যালয়ে যখন তৃণমূলের নির্বাচিত ১৩ জন পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যদের উপস্থিতিতে সভাপতি, সহ-সভাপতি নির্বাচিত হল, ঠিক সেসময় মাত্র এক কিলোমিটার দূরে সদ্য প্রাক্তন মাল পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি কৌশল্যা রায়কে ঘেরাও করে বিক্ষোভে শামিল হলেন দলীয় কর্মীরা। অভিযোগ, তাঁকে শারীরিকভাবে হেনস্থাও করা হয়। যদিও ব্লক নেতৃত্বের দাবি এধরনের কোনও ঘটনা জানা নেই।

ক্রান্তি, চাপাডাঙ্গা, রাজাডাঙ্গা, চেংমারী, লাটাগুড়ি ও মৌলানি গ্রামপঞ্চায়েতকে নিয়ে আলাদা ক্রান্তি ব্লক গঠন পরবর্তীকালে এদিন গঠিত হল পঞ্চায়েত সমিতি। অন্যদিকে, এদিনই তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্য ও মাল পঞ্চায়েত সমিতির সদ্য-প্রাক্তন হওয়া সভাপতি কৌশল্যা রায় বোর্ড গঠনে যোগ দিতে উদ্যত হলে মাঝপথে তাঁকে আটকে দেখাতে শুরু করেন কর্মীরা। বিক্ষোভের নেতৃত্ব প্রদানকারী স্থানীয় চ্যাংমারী গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান তথা তৃণমূল নেত্রী মুক্তি সোরেন অভিযোগ করে জানান, ব্লকের বিভিন্ন চা বাগানে পঞ্চায়েত সমিতির তরফে হাঁস, মুরগি থেকে মশারি দেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল। সেই সমস্ত নথি তৎকালীন মাল পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি কৌশল্যা রায় মারফৎ পাঠানো হলেও কোনও সুযোগ-সুবিধা পাননি বাগানের শ্রমিকরা। যদিও কৌশল্যা রায় সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, সমগ্র ঘটনা জেলা ও রাজ্য নেতৃত্বকে জানানো হবে।

- Advertisement -

অপরদিকে ক্রান্তির বিডিও প্রবীর সিনহা জানান সমস্ত নিয়ম মেনে এদিন পঞ্চায়েত সমিতি গঠন করা হয়।সভাপতি এবং সহ-সভাপতি নির্বাচিত হন যথাক্রমে পঞ্চানন রায় এবং মহাসেনা বেগম। এদিকে কৌশল্যা রায় প্রসঙ্গে তৃণমূলের ক্রান্তি ব্লক সভাপতি মেহবুব আলম ও জলপাইগুড়ি জেলা মহিলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি মহুয়া গোপ জানান, কৌশল্যাকে আটকে বিক্ষোভ দেখানোর। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখা হবে।