বল ভেবে বোমা নিয়ে খেলতে গিয়ে বিস্ফোরণ, বাঁ হাত উড়ে গেল শিশুকন্যার

326

রায়গঞ্জ: বল ভেবে বোমা নিয়ে খেলতে গিয়ে বাঁ হাত উড়ে গেল সাড়ে তিন বছরের এক শিশুকন্যার। ছোট মেয়েটির সারা শরীর স্প্রিন্টারের আঘাতে ক্ষত বিক্ষত হয়ে গিয়েছে। সোমবার ইটাহারের সুরুন-১ পঞ্চায়েতের ইন্দ্রান গ্রামের ঘটনা। খবর পেয়ে পুলিশ পৌঁছে ঘটনাস্থল থেকে আরও তিনটি তাজা বোমা উদ্ধার করেছে। বোমার আঘাতে গুরুতর জখম ওই শিশুটির নাম পূর্ণিমা সাহা ওরফে পলি। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়েছে। জখম কিশোরীর বাবা বুধু সাহা পেশায় শ্রমিক। কিছুদিন আগে তিনি বাড়ি ফিরেছেন।

তিনি জানান, বেলা সাড়ে বারোটা নাগাদ মাঠে কাজ করার সময় বোমা ফাটার শব্দ শুনে দৌড়ে মেয়েকে রক্তাপ্লুত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। তড়িঘড়ি তাকে উদ্ধার করে ইটাহার গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে গেলে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে রেফার করে দেওয়া হয়। এদিন দুপুর নাগাদ শিশুটির অস্ত্রোপচার হয়। এরপর উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

- Advertisement -

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, একটি আম গাছের নিচে কয়েকটি বোমা রাখা ছিল। জমি সংক্রান্ত বিবাদকে কেন্দ্র করে স্থানীয় এক বাসিন্দা একাজ করেছিলেন। সুরুন-১ পঞ্চায়েতের প্রধান অনিতা দাস বলেন, ‘এলাকার বাসিন্দা সুনীল দাসের সঙ্গে বিপ্লব দাসের সম্পত্তি নিয়ে বিবাদ চলছিল। একাধিকবার পঞ্চায়েতের তরফ থেকে সালিশি সভার মাধ্যমে ওই মিটিয়ে ফেলার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু দুই পক্ষই তাদের অবস্থানে অনড় থাকায় সমস্যার সমাধান করা যায়নি। এদিন দুপুরে সুনীল দাসের বাড়ির গাছের নিচে মজুদ করা বোমা বল ভেবে খেলতে গিয়ে সাড়ে তিন বছরের শিশুটি জখম হয়েছে। পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে। সুনীল দাসের বাড়ি থেকে তাজা বোমা উদ্ধার হয়েছে।’

ইটাহার থানার আইসি দীপঙ্কর বিশ্বাস সহ জেলা পুলিশের কর্তারা এলাকায় যান। রায়গঞ্জের পুলিশ সুপার সুমিত কুমার জানান, কীভাবে বোমা এলো, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।