সাতসকালে বিজেপি কার্যালয়ের সামনে বোমা পড়ে থাকতে দেখে চাঞ্চল্য

235

তুফানগঞ্জ: সকাল সকাল বিজেপি কার্যালয়ের সামনে বোমা পড়ে থাকতে দেখে চাঞ্চল্য ছড়াল তুফানগঞ্জ-১ ব্লকের চিলাখানা-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের চিলাখানায়। ঘটনার পর খবর পেয়ে তুফানগঞ্জ থানার পুলিশ এসে বোমাটি উদ্ধার করে।

স্থানীয় সূত্রে খবর, ঘটনার সূত্রপাত বৃহস্পতিবার। এদিন সন্ধ্যে নামতেই তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যালয়ে লাগানো ব্যানার ও ফ্ল্যাগ কে বা কারা ছিরে ফেলে। এই ঘটনায় অভিযোগের আঙ্গুল ওঠে বিজেপির দিকে। অন্যদিকে শুক্রবার সকালে প্রাতঃভ্রমণকারীরা প্রথমে একটি বোমা দেখতে পান বিজেপি কার্যালয়ের সামনে। খবর দেওয়া হয় ভিলেজ পুলিশ ও বিজেপি কার্যকর্তাদের। কার্যালয়ের সামনে বোমা পাওয়ার ঘটনায় অভিযোগের আঙ্গুল উঠেছে তৃণমূল কংগ্রেসের দিকেই। এদিকে দু’দিনের এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে যথেষ্ট উত্তাপ ছড়িয়েছে চিলাখানায়। পূর্বের অভিজ্ঞতা মাথায় রেখে কোনওরকম গন্ডোগোল ঠেকাতে পুলিশবাহীনি মোতায়েন করা হয়েছে বলে খবর।

- Advertisement -

এবিষয়ে চিলাখানা অঞ্চল তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যকারী সভাপতি ইন্দাদুল হক জানান, শান্ত চিলাখানাকে অশান্ত করার উদ্দেশ্যে বিজেপি কর্মীরা বৃহস্পতিবার রাতে আমাদের কার্যালয়ের সামনে রাখা ফ্ল্যাগ ও ব্যানার ছিড়ে ফেলে। রাতে পুলিশকে জানানোর পর পুলিশ এসে ঘটনার তদন্ত করে যায়। শুনলাম শুক্রবার সকালে বিজেপি কার্যালয়ের সামনে থেকে বোমা উদ্ধার হয়েছে। সেই বোমা নাকি তৃণমূল রেখেছে বলে অভিযোগ তুলেছেন তাঁরা। এমন অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। কার্যালয়ের সামনে নিজেরাই বোমা রেখে আমাদের নামে কুৎসা রটাচ্ছে। এর সঙ্গে তৃণমূলের কোনও যোগ নেই। বিজেপির পায়ের তলার মাটি সরে যেতেই এই নোংরা রাজনীতিতে মেতেছে তাঁরা।

এবিষয়ে ২৮ নম্বর মন্ডল সভাপতি রবীন্দ্রনাথ বর্মন বলেন, ‘চিলাখানা সহ সমগ্র তুফানগঞ্জে বিজেপির যে উত্থান দেখছে তৃণমূল, তাতে ভয় পেয়ে এই ধরনের নোংরা রাজনীতি শুরু করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। আমাদের কার্যালয় উড়িয়ে দেওয়ার উদ্দেশ্যে বোমা ফেলা হয়। বৃষ্টির কারণে সম্ভবত সেটা ফাটেনি। এর ফলে রক্ষা পায় আমাদের কার্যালয় সহ চিলাখানা বাজার। আমরা বিষয়টি তুফানগঞ্জ থানায় বিস্তারিত জানিয়েছি। পুলিশ এসে বোমাটি উদ্ধার করেছে। ঘটনার প্রতিবাদ জানাতে চিলাখানায় একটি মিছিল করব। লিখিতভাবেও তুফানগঞ্জ থানার পুলিশকে অভিযোগ জানানো হবে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে তুফানগঞ্জ থানার পুলিশ।