ভোটের মুখে মাঠ থেকে বোমা উদ্ধার, আতঙ্ক

66

আলিপুরদুয়ার: ভোটের মুখে চাপরের পাড়-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের ধারেয়া হাট বাজার এলাকা বোমাতঙ্কে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা নাগাদ হিতেন রায় নামে স্থানীয় বাসিন্দা ফলের দোকানের পিছনে মাঠে গোরু চড়াতে গিয়ে প্লাস্টিকের প্যাকেটের ভিতর বোমা দেখতে পায়। প্রথমে ফল ভেবে গোরুকে খাওয়াতে যান। কিন্তু প্যাকেট খুলতেই বোমা দেখে খবর দেন প্রতিবেশীদের। ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছে তদন্ত শুরু করে। কোচবিহারের নাটাবাড়ির, তুফানগঞ্জের মতো জায়গার সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ থাকায় এই রাস্তার গুরুত্ব রয়েছে। বোমা পাওয়ার খবর পেয়ে উপস্থিত হন এসডিপিও দেবাশিস চক্রবর্তী, আলিপুরদুয়ার থানার আইসি অনিন্দ্য ভট্টাচার্য। পুলিশ আসলেও বম্ব স্কোয়াডের জন্য অপেক্ষা করতে হয়। তবে প্রশাসনিক প্রক্রিয়া চলতে সময় লেগে যায়। এদিকে খবর পেয়ে নির্বাচন কমিশনের স্কোয়াডবাহিনী এলাকা পরিদর্শন করে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, যেখানে বোমা পাওয়া গিয়েছে তার ২৫ মিটারের মধ্যে কোচবিহার বর্ডার। কোচবিহার উত্তর আমবাড়ি বিধানসভা একপাশে আরেক পাশে আলিপুরদুয়ার চালনির পাক ১২\২৭২ নম্বর বুথ। ধারেয়াহাট এলাকায় কোনও রকম রাজনৈতিক উত্তেজনা নেই বলে স্থানীয়দের দাবি। তবু ভোট আসলেই বারবার কেন বোমা পাওয়া যাচ্ছে তা নিয়ে চিন্তিত এলাকাবাসী। তবে ভোটের মুখে রাজনৈতিক উত্তেজনা ছড়ানোর অভিযোগ করছেন এলাকাবাসী। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, হাতে তৈরি সুতলি বোমা। গ্রামীণ এলাকায় তৈরি নিম্ন ক্ষমতা সম্পন্ন একাধিক বোমা উদ্ধার করা হয়। বম্ব স্কোয়াডের কর্মীরা এসে বোমা উদ্ধার করে। তারপর নির্দিষ্ট নির্দেশিকা মেনে বোমা গুলি নিষ্ক্রিয় করা হয়।

- Advertisement -

চাপরের পাড়-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান প্রকাশ রায় সরকার জানান, ধারেয়াহাট এলাকা থেকে একাধিক সুতলি বোমা উদ্ধার হয়। জায়গাটি কোচবিহারের বোর্ডার এলাকা। সামনে কোচবিহার ও আসাম এলাকা। নির্বাচনের সময় আতঙ্ক ছড়ানোর জন্য এরকম কাজ বলে মনে হচ্ছে। অ্যাডিশনাল এসপি অম্লান ঘোষ বলেন, ‘প্রাথমিক ভাবে অনুমান নিম্নমানের গ্রাম্য সুতলি বোমা। প্রায় ৪-৫টি বোমা উদ্ধার করে বম্ব স্কোয়াডের মাধ্যমে নিষ্ক্রিয় করা হয়।