শীতেই জল সংকট তপনে, চিন্তায় বোরোচাষিরা

বিপ্লব হালদার, তপন : পুরোপুরিভাবে বিদায় নেয়নি শীত। তার মধ্যেই তপন ব্লক জুড়ে তীব্র জল সংকট দেখা দিতে শুরু করেছে। জলস্তর নীচে নেমে যাওয়ায় মার্ক টু টিউবওয়েলগুলি অকোজো হতে শুরু করেছে। সেচের জল নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন বোরোচাষিরা। জল সংকটের ব্লক হিসাবে তপন পরিচিত। শুধু গ্রীষ্ম নয়, সারা বছরই এখানে জল সংকট। শীতকালে এই সংকট তেমন বোঝা না গেলেও প্রচণ্ড দাবদহে জল সংকট তীব্র আকার ধারণ করে। কিন্তু এবছর শীতকালেই সেই সংকট দেখা দিতে শুরু করেছে। ব্লকের আউটিনা, মালঞ্চা, গোফানগর, গুড়াইল, হরসুরা গ্রাম পঞ্চায়েতে সবচেয়ে বেশি জল সংকট। পুরোনো সহ সদ্য বসানো মার্ক টু টিউবওয়েলগুলি দিয়ে জল উঠছে না। মার্ক টু টিউবওয়েলগুলি ক্রমশ অকেজো হয়ে পড়ায় চিন্তায় পড়েছেন তপনবাসী।

আউটিনা গ্রাম পঞ্চায়েতের এড়েন্দা এলাকার গৃহবধূ আমিনা বিবি বলেন, সীমান্তবর্তী এলাকায় বসবাস করি। এখানে শীত কিংবা বর্ষা, প্রায় সারা বছরই জলের সমস্যা। গ্রীষ্মকালে প্রায় দেড় কিলোমিটার দূর থেকে জল আনতে হয়। এবছর শীতকালেই গ্রামের মার্ক টু টিউবওয়েল দিয়ে জল উঠছে না। এতে ভীষণ চিন্তায় রয়েছি। সন্ধ্যাপুকুর গ্রামের বুধন হেমরম বলেন, আমাদের এখানে জলস্তর খুবই গভীরে। সেজন্য মার্ক টু টিউবওয়েল বসালেও জল উঠতে চায় না। অনেক সময় আমরা বিএসএফ ক্যাম্পে গিয়ে জল সংগ্রহ করি। গরমের সময় ভীষণ সমস্যায় পড়তে হয়। মণিপুর গ্রামের জীতেন বর্মন বলেন, গ্রামে মার্ক টু টিউবওয়েল দিয়ে খুব বেশি জল না উঠলেও জল মিলত। কিন্তু এবার শীতকালেও মার্ক টু টিউবওয়েল দিয়ে জল উঠছে না। জলের সংকট আসন্ন গ্রীষ্মকালে ভয়ানক আকার ধারণ করতে পারে। তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছি।

- Advertisement -

গোফানগরের কমল সরকার বলেন, কিছুদিন আগে আমাদের গ্রামের মার্ক টু টিউবওয়েল খারাপ হয়ে যায়। মেরামতির পরেও জল উঠছে না। গরম এখনও পড়েনি। তার আগে মার্ক টু টিউবওয়েল খারাপ হয়ে পড়ায় পানীয় জল নিয়ে আমরা দুশ্চিন্তায় রয়েছি। শ্রীবই গ্রামের বাসিন্দা জ্যোৎস্না মার্ডি জানান, তাঁদের গ্রামে বেশ কয়েটি মার্ক টু টিউবওয়েল রয়েছে। তার মধ্যে একটা মার্ক টু টিউবওয়েল দিয়ে জল ওঠে। বাকি টিউবওয়েলগুলি অকেজো হয়ে পড়েছে। ধানচাষি আবুজার সরকার বলেন, এখন বোরো চাষের মরশুম। কিন্তু সেচের জল সহজে মিলছে না। বিদ্যুৎ দপ্তরের অনুমতি নিয়ে সেচের জলের ব্যবস্থা করতে হবে। বোরোচাষি মোতালেব আলি বলেন, বোরো চাষের ওপর আমরা বেশি নির্ভরশীল। এবছর দেখতে পাচ্ছি শীতকালেও খাল, বিলে জল নেই। বোরো চাষ করতে গেলে প্রচুর জলের প্রয়োজন। প্রচণ্ড গরম পড়লে সেচের জলের সংকট দেখা দেবে। তাই বোরো চাষ নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছি।

এ প্রসঙ্গে পরিবেশপ্রেমী অলোক সরকার বলেন, শ্যালো বা পাম্প মেশিন চালিয়ে যথেচ্ছ জল তোলায় জলস্তর নীচে নেমে যাচ্ছে। যার ফলে শীতকালেই মার্ক টু টিউবওয়েলগুলি দিয়ে জল উঠছে না। এখন থেকেই আমাদের সতর্ক না হলে গ্রীষ্মকালে ভীষণ সমস্যায় পড়তে হবে। জল অপচয় বন্ধ করতে হবে। তপন পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি রাজু দাস বলেন, তপনে জল সংকট দূর করার জন্য করদহে পুনর্ভবা নদীতে জল প্রকল্পের কাজ চলছে জোরকদমে। জল প্রকল্পের কাজ শেষ হলে তপনে অনেকটা জলকষ্ট দূর হবে। তাছাড়া পঞ্চায়েত সমিতির তরফেও জলের সমস্যা দূর করার চেষ্টা করা হচ্ছে। তপনের বিডিও ছোগেল মোক্তান তামাং বলেন, মার্ক টু টিউবওয়েলগুলি মেরামতি করার জন্য গ্রাম পঞ্চায়েতগুলিকে বলা হয়েছে। টিউবওয়েলগুলি ঠিক থাকলে জলকষ্ট অনেকটাই দূর হবে।