শিলান্যাসেই থমকে সীমান্তবর্তী ডাকুরপাড়ের সেতু

148

গৌতম সরকার, মেখলিগঞ্জ : পাকা সেতুর আশায় এবারও দুর্বল কাঠের সেতু পেরিয়ে ভোট দেবেন মেখলিগঞ্জ ব্লকের বাগডোকরা-ফুলকাডাবরি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী ডাকুরপাড় এলাকার বাসিন্দারা। এলাকার সানিয়াজান নদীর ওপর থাকা দুর্বল কাঠের সেতুটি বছরের পর বছর থেকে পাকা করার দাবি করে আসছেন স্থানীয়রা। এই সেতু পেরিয়ে ওপারে রয়েছে স্কুল, বাজার এবং বামনের বাসা, টুনিয়াবাড়ি, কোয়ার্টার এলাকা। প্রতিনিয়ত মানুষ এই সেতু দিয়ে যাতায়াত করে আসছেন। স্থানীয়দের দাবিকে মান্যতা দিয়ে বাম আমলে এ বিষয়ে উদ্যোগ নেওয়া হলেও আজ পর্যন্ত সেই পাকা সেতু তৈরি হয়নি।

২০০৯ সালে এখানে এসে পাকা সেতুর শিলান্যাস করেছিলেন তৎকালীন পূর্তমন্ত্রী ক্ষিতি গোস্বামী। কিন্তু এরপর কোনও কাজ হয়নি। স্থানীয়রা জানান, তাঁদের নদী পেরিয়ে গ্রাম থেকে বাইরে বেরিয়ে আসতে হচ্ছে। তবে শুধু বাসিন্দাদের যাতায়াত করতেই সমস্যা হচ্ছে না। এলাকার কৃষকদের কৃষিপণ্য বিক্রি করতে হলে সেতু পেরিয়ে সেগুলি এপারে নিয়ে আসতে হচ্ছে। যানবাহনের চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কৃষিপণ্য মাথায় করে সেতুর এপারে নিয়ে আসতে হচ্ছে। এতে এখানকার কৃষিনির্ভর মানুষদের সমস্যায় পড়তে হচ্ছে।

- Advertisement -

তবে প্রশাসনের তরফে সতর্কতার সাইনবোর্ড ঝুলছে। বন্যায় জলের স্রোতে দুর্বল কাঠের সেতুটি ভেঙে গেলে সেতুর ওপারে থাকা মানুষজনের বাইরের জগতের সঙ্গে যোগাযোগ পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। প্রতিনিয়ত আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন স্থানীয়রা।

চলতি বিধানসভা নির্বাচনের আগেই প্রশাসনের তরফে এই সেতু পাকা করার বিষয়ে প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দের কথা ঘোষণা করা হয়। এর মধ্যেই অবশ্য নির্বাচন ঘোষণা হয়ে যায়। তাই স্থানীয় বাসিন্দা রাজীব বর্মন, তাপস রায়রা মনে করছেন, এবারের বর্ষাতেও দুর্বল কাঠের সেতুই যাতায়াতের ভরসা হয়ে থাকবে। রাজীববাবু বলেন, শিলান্যাসের প্রায় ১২ বছর পরেও পাকা সেতু হয়নি। এবার টাকা বরাদ্দের কথা শুনলেও সেটা নিয়ে তেমন আশার আলো দেখি না আমরা। এ নিয়ে অনেকটাই মন খারাপ।

এই সেতুটি রক্ষণাবেক্ষণের দাযিত্বে তিস্তা ব্রিজ কনস্ট্রাকশন ডিভিশন রয়েছে। এই ডিভিশনের এক আধিকারিক অবশ্য জানিয়েছেন, বিষয়টি সম্পর্কে তাঁরা অবগত। কিন্তু এই মুহূর্তে কোনও মন্তব্য করা যাবে না। মেখলিগঞ্জের বিডিও অরুণকুমার সামন্তকে এবিষয়ে জিজ্ঞেস করা হলে কোনও মন্তব্য করতে চানন।