ফেব্রুয়ারিতেই মুখ্যমন্ত্রীর হাত ধরে উদ্বোধন হতে চলেছে ‘জয়ী সেতু’

216

হলদিবাড়ি: দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান। নতুন বছরে মেখলিগঞ্জ মহকুমাবাসী উপহার হিসেবে পেতে চলেছেন জয়ী সেতু। ২০১৫ সালের ৬ আগস্ট মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হলদিবাড়ির হুজুরের মাজার প্রাঙ্গণে আয়োজিত ২১তম প্রশাসনিক বৈঠক থেকে তিস্তার ওপর প্রস্তাবিত সেতুর শিলান্যাস করেছিলেন। সঙ্গে দ্রুত সেতুটি নির্মাণের আশ্বাস দেন। তিনি নিজেই প্রস্তাবিত সেতুর নামকরণ করেন ‘জয়ী সেতু’। ইতিমধ্যেই সেতুর কাজ শেষ। বিশ্বস্ত সূত্রে খবর, আগামী ১ ফেব্রুয়ারি উত্তরবঙ্গ সফরে আসবেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। ২ ফেব্রুয়ারি ডুয়ার্স কন্যায় প্রশাসনিক বৈঠক করার কথা রয়েছে তাঁর। সেখান থেকেই ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ‘জয়ী সেতুর’ উদ্বোধন করতে পারেন বলেই খবর। যদিও এবিষয়ে প্রশাসনিক তরফে কোনও কিছু জানা যায়নি।

পূর্ত দপ্তর সূত্রে খবর, তিস্তা নদীর উপর ৭৮টি পিলার যুক্ত ২.৭ কিলোমিটার দীর্ঘ সেতুটি নির্মাণের জন্য প্রায় ৪১৫ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে। ইতিমধ্যে রাজ্যের মধ্যে দীর্ঘতম নদী তিস্তার উপর ‘জয়ী সেতুর’ উদ্বোধনের প্রশাসনিক তৎপরতা শুরু হয়েছে হলদিবাড়িতে। অন্যদিকে, সেতুর অ্যাপ্রোচ রোডের কাজ চলছে। পাশাপাশি উদ্বোধনের ফলক বসানোর জন্য বেদী তৈরি করা হচ্ছে। মার্বেল পাথরের উদ্বোধনী ফলক তৈরির বরাত দেওয়া হয়েছে। এবিষয়ে পূর্ত দপ্তরের তিস্তা ব্রিজ কনস্ট্রাকশন ডিভিশনের এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার রাজেশ কুমার সিং বলেন, ‘এখনও পর্যন্ত সরকারি কোনও নির্দেশ আমাদের হাতে এসে পৌঁছোয়নি। তাই সঠিক করে কিছু বলা সম্ভব নয়। তবে উদ্বোধনের প্রস্তুতি শুরু করা হয়েছে।’

- Advertisement -