পৃথিবীতে করা যায়, এমন অনেক কাজই মহাকাশে করা যায় না। যেমন, মহাকাশে যে ঢেকুর তোলা যায না। মহাকাশে যাওযার অভিজ্ঞতা নিযে বলতে গিযে অনেক অদ্ভুত প্রশ্নের মুখোমুখি হন মহাকাশচারীরা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এক প্রাক্তন মহাকাশচারী, ক্রিস হ্যাডফিল্ড মহাকাশে তাঁর জীবন নিযে বেশ মজার কিছু তথ্য দেন। টুইটারে একজন তাঁকে প্রশ্ন করেন, মহাকাশচারীরা মহাকাশে থাকা অবস্থায ঢেকুর তুলতে পারেন কিনা।
হ্যাডফিল্ড জানান, পৃথিবীতে আমরা খাওযা-দাওযা করার পর মাধ্যাকর্ষণের টানে খাবারের শক্ত অংশ পাকস্থলির নীচের দিকে চলে যায। এর উপরে থাকে তরল অংশ এবং সবচেযে উপরে বাযু থাকে। পৃথিবীতে বসে ঢেকুর তুললে তাই উপরের বাতাসটাই বের হয। কিন্তু মহাকাশে তা হয না। মহাকাশযানে ভরশূন্য পরিবেশে আপনি কিছু খেলে, কঠিন, তরল ও বাযু একসঙ্গে মিশে থাকে। ফলে ঢেকুর তুলতে গেলে শুধু বাতাস নয, বরং খাবারও চলে আসবে মুখে। তাই ঢেকুর তোলার বদলে আপনি বমি করে দেবেন। এই বমি আবার বাথরুমে কিংবা বেসিনে ধুযে ফেলবেন, সেটাও কিন্তু সম্ভব নয। তা ভেসে বেড়াবে মহাকাশযানের বাতাসে।
তবে মহাকাশযানে অনাকাঙ্ক্ষিত জিনিস ভেসে বেড়ানোর ঘটনা খুব নতুন কিছু নয। ১৯৬৯ সালে অ্যাপোলো-১০ মিশন চলাকালীন মল ভেসে বেড়াচ্ছিল মহাকাশযানে। কিছুদিন আগেই মহাকাশচারী স্কট কেলি এক গ্যালন পরিমাণ মূত্র ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনে ভেসে বেড়ানোর অভিজ্ঞতার কথা জানান।