যাত্রী নেই, পিসি মিত্তল বাস টার্মিনাস থেকে বাস পরিষেবা স্থগিত

519

শিলিগুড়ি: সরকারি, বেসরকারি বাস পরিষেবা শুরু হলেও যাত্রীর দেখা নেই। দক্ষিণবঙ্গে যখন প্রয়োজনের তুলনায় বাসের সংখ্যা কম থাকার জেরে যাত্রীরা নাকাল হচ্ছেন, তখন উত্তরবঙ্গে যাত্রীর অপেক্ষায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা বাস দাঁড়িয়ে থাকছে।

তেনজিং নোরগে বাস টার্মিনাস সূত্রে জানা গিয়েছে, যাত্রীসংখ্যা এতটাই কম হচ্ছে যে রুট প্রতি বাস ছাড়ার সময়সীমা বাড়াতে হচ্ছে। এরপরও যত আসন, তত যাত্রী হচ্ছে না। এমন পরিস্থিতিতে গোটা উত্তরবঙ্গের নিরিখে দিনপ্রতি লক্ষাধিক টাকার ক্ষতির মুখে পড়ছে উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ নিগম। বেসরকারি বাসের হিসেব ধরলে দিনপ্রতি ক্ষতির পরিমাণ আরও বেড়ে যাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে বুধবার থেকে পিসি মিত্তল বাস টার্মিনাস থেকে বাস পরিষেবা স্থগিত রাখলেন বাস মালিকরা। তাঁদের তরফে উদয় ঘোষ জানিয়েছেন, যাত্রী না হওয়ায় কয়েকদিনের জন্য তাঁরা বাস পরিষেবা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

- Advertisement -

ট্রিপ প্রতি ১৫০০ টাকার বেশি ক্ষতি হওয়ায় বেসরকারি বাসকর্মী, মালিকদের দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গিয়েছে বলে জানিয়েছেন নর্থবেঙ্গল প্যাসেঞ্জার্স ট্রান্সপোর্ট কোঅর্ডিনেশন কমিটির সম্পাদক প্রণব মানি। তিনি বলেন, ‘নতুন করে পরিষেবা শুরু করার পর রুট প্রতি যত বাস ছাড়া হচ্ছিল, যাত্রী না থাকায় দিনে দিনে সে সংখ্যাটা আমরা কমিয়ে দিলেও অধিকাংশ সিটই ফাঁকা থাকছে। যেখানে যাত্রীই নেই, সেখানে ভাড়া বাড়ল কি বাড়ল না, তার কোনো মূল্যই নেই। আমরা সরকারের দ্বারস্থ হতে চলেছি। সরকার শ্রমিক, কনডাক্টরদের জন্য কোনো আর্থিক ব্যবস্থা না করলে অন্তত উত্তরের বেসরকারি বাসকর্মী, মালিকের ঘুরে দাঁড়ানো নিয়ে সন্দেহ রয়েছে।’

এনবিএসটিসি সূত্রে জানা গিয়েছে, উত্তরবঙ্গে গত ২৭ তারিখ বাস পরিষেবা শুরু করার সময় ২৫০টি বাস রাস্তায় নামলেও সে সংখ্যাটা পরবর্তীতে ৩৫০ হয়েছিল। যাত্রী স্বাচ্ছন্দ্যের কথা ভেবে বাসের সংখ্যা বাড়লেও যাত্রীসংখ্যা বাড়েনি। আগে শিলিগুড়ি-জলপাইগুড়ি রুটে প্রতি ১৫ মিনিট অন্তর বাস ছাড়া হলেও এখন সে সংখ্যা ৩০ মিনিটেরও বেশি করা হয়েছে। তারপরও অধিকাংশ সিটই খালি থাকছে। সমস্ত রুটেই একই ছবি দেখা যাচ্ছে। সব মিলিয়ে প্রতিদিন লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হচ্ছে। মালদা, রায়গঞ্জ রুটে যাত্রী সব থেকে কম বলে বাসকর্মীদের সূত্রে জানা গিয়েছে। এনবিএসটিসির ম্যানেজিং ডিরেক্টর সন্দীপ দত্ত বলেন, আমাদের মূল লক্ষ্য যাত্রীদের স্বাচ্ছন্দ্যের সঙ্গে গন্তব্যে পেঁছানো। সারাদিনের পাশাপাশি অফিসের সময়ে বাস পরিষেবার ক্ষেত্রে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।

টার্মিনাসের বেসরকারি স্ট্যান্ডের ইনচার্জ অশোক সরকার বলেন, ‘নতুন করে বেসরকারি বাস পরিষেবা শুরুর দিন আমরা শিলিগুড়ি থেকে ১৬টি বাস বিভিন্ন রুটে ছেড়েছিলাম। এখন সেই সংখ্যাটা সাতে এসে দাঁড়িয়েছে। যাত্রীসংখ্যা এরকম থাকলে কোচবিহার, মাথাভাঙ্গা, রায়গঞ্জ, মালদা সহ বিভিন্ন রুটে ওই ৭টি বাস আমরা কতদিন চালাতে পারব, তা সত্যি কথা বলতে জানা নেই। অন্য জেলার বাসগুলিরও একইরকম পরিস্থিতি।’