ধারালো অস্ত্র দিয়ে ব্যবসায়ীর ওপর হামলার অভিযোগ

162

চোপড়া, ১৫ জুনঃ সদর চোপড়া এলাকায় ১ ব্যবসায়ীর ওপর দিনদুপুরে ধারালো অস্ত্র নিয়ে অতর্কিতে হামলার অভিযোগে সোমবার ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ালো। আক্রান্ত ব্যবসায়ীর নাম মঞ্জুর আলম। চোপড়া থানা চত্ত্বরের ৫০০ মিটারের মধ্যে তাঁর জুতার দোকান রয়েছে। জনবহুল এলাকায় এদিন ১ যুবক ওই ব্যবসায়ীর উপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা চলায় বলে অভিযোগ।

চিৎকার চেঁচামেচি শুনে মুহুর্তে অনেকেই জড়ো হয়ে যান। স্থানীয় ব্যবসায়ীদের সূত্রে জানা গিয়েছে, সবাই এগিয়ে আসতেই দেখা যায় ব্যাবসায়ীর সারা শরীর থেকে রক্ত ঝরছে। তখনও ১ যুবকের হাতে ধারালো অস্ত্র ছিল। তারপর উত্তেজিত জনতা ওই যুবককে হাতেনাতে ধরে দড়ি দিয়ে বেঁধে আটকে রাখেন। উত্তেজনার বসে অনেকে ওই যুবক বেধরক মারধর করেছেন বলে অভিযোগ। পুলিশ পৌঁছে সফিক আলম নামে ওই যুবককে হাসপাতালে নিয়ে যায়। এদিকে আক্রান্ত ওই ব্যবসায়ীকে প্রথমে দলুয়া ব্লক স্বাস্থ্য কেন্দ্রে আনা হয়। স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ভেতরেও ওই যুবককে মারধর করার অভিযোগ উঠেছে। দলুয়া ব্লক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের বিএমওএইচ ডাঃ রাহুল সরকার জানিয়েছেন, স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ভেতরে ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছিল। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিযন্ত্রণে অনে। ওই যুবককে ইসলামপুর মহকুমা হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে।

- Advertisement -

জানা গিয়েছে, আক্রান্ত ওই ব্যবসায়ী এবং যার বিরুদ্ধে অভিযোগ ২ জন স্থানীয় ঝাড়বাড়ি গ্রামের বাসিন্দা। ঝাড়বাড়ী গ্রামের বাসিন্দা কথা গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য হাসান কামাল রানা বলেন, যে যুবকের বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ উঠেছে, সে মানসিকভাবে বিকারগ্রস্ত। যতটুকু জানি কয়েকদিন ধরে ওই যুবক ব্যবসায়ী মঞ্জুর আলমকে উত্ত্যক্ত করত। এদিন সকালেও ২ জনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। সম্ভবত সকালের ঝামেলা জেরেই দুপুরে দোকানে গিয়ে হামলা চালিয়েছে। এদিন আক্রান্ত ওই ব্যাবসায়ীর পরিবার থেকে পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগে জমা পড়েছে। পরিকল্পনা মাফিক হামলা বলে আক্রান্ত ব্যাবসায়ীর পরিবারের লোকজনের অভিযোগ। চোপড়া থানার আইসি বিনোদ গজমের বলেন, এব্যাপারে অভিযোগ জমা পড়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।