দেওয়ানগঞ্জ বাজারের ফুটপাথের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা পেলেন স্থায়ী দোকান

181

হলদিবাড়ি: কোচবিহার জেলার প্রাচীন জনপদ দেওয়ানগঞ্জ। বছরের শুরুতে সেই দেওয়ানগঞ্জ বাজারের ফুটপাথের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা পেলেন স্থায়ী দোকান। শনিবার এই ব্যবসায়ীদের জন্য দেওয়ানগঞ্জ বাজারের নবনির্মিত সবজি বাজার ও স্টলের শুভ উদ্বোধন করা হয়। ফিতে কেটে ও ফলক উন্মোচন করে এর উদ্বোধন করেন মেখলিগঞ্জের বিধায়ক অর্ঘ্য রায়প্রধান। উপস্থিত ছিলেন হলদিবাড়ির বিডিও তাপসী সাহা, পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি নূপুর বর্মন, সহ সভাপতি কল্লোল কুমার গুহ, পঞ্চায়েত প্রধান ঝর্ণা রায় বসুনিয়া, পঞ্চায়েত সদস্য গৌরাঙ্গ বিশ্বাস, পঞ্চায়েত সমিতির ডেপুটি সেক্রেটারি ত্রিলোচন বর্মন, বিশিষ্ট সমাজসেবী অলিউল ইসলাম সরকার সহ আরও অনেকে। এদিন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানেই স্টলের মালিকদের হাতে দোকানের চাবি ও চুক্তিপত্র তুলে দেওয়া হয়। বছর শুরুতেই নতুন সবজির বাজার পেয়ে খুশি ব্যবসায়ীরা।

দেওয়ানগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ীদের দাবি মেনে হলদিবাড়ি সমষ্টি উন্নয়ন আধিকারিকের করণের অধীন দেওয়ানগঞ্জ বাজারে সবজির বাজার ও স্টল করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। গত বছর ১৭ জানুয়ারি সীমান্ত এলাকা উন্নয়ন তহবিলের ৪৪ লক্ষ ৭৭ হাজার ৬৪০ টাকা ব্যয়ে এই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। গত বছর ১৩ নভেম্বর প্রকল্পের কাজ শেষ হয়। আনাজ বাজারের পাশাপাশি ন’টি স্টল নির্মাণ করা হয়। ১০/১০ ফুটের স্টলগুলি সেই জায়গায় থাকা আগের ব্যবসায়ীদের মধ্যে বণ্টন করা হয়।

- Advertisement -

দেওয়ানগঞ্জ ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক রিতম রায় বলেন, ‘হলদিবাড়ি ব্লকের প্রাচীনতম হাট হল দেওয়ানগঞ্জের হাট। সপ্তাহের বুধ ও রবিবার এখানে হাট বসে। এছাড়াও নিত্যদিন ফুটপাথে নিজেদের সবজির পসরা সাজিয়ে বসেন প্রায় ৫০ জন ব্যবসায়ী। হাটের দিন সংখ্যাটা কয়েকগুণ বৃদ্ধি পায়। এতে বাজারের গলির রাস্তা দখল হয়ে যায়। চলাচলের অসুবিধা হয়। এছাড়াও বৃষ্টির সময় দোকান বন্ধ রাখতে হয়। সেকারণেই এই ব্যবসায়ীদের জন্য স্থায়ী সবজি বাজারের খুব প্রয়োজন ছিল। এছাড়াও এখন থেকে এক জায়গায় সমস্ত সবজি মিলবে।’

হলদিবাড়ির বিডিও তাপসী সাহা বলেন, ‘এটি নির্মাণের ফলে সকল স্তরের ব্যবসায়ীদের পাশাপাশি স্থানীয় জনগণ উপকৃত হবেন।’ বিধায়ক অর্ঘ্য রায়প্রধান বলেন, ‘বর্তমান রাজ্য সরকারের আমলে মহকুমার অন্য জায়গার পাশাপাশি দেওয়ানগঞ্জের প্রভূত উন্নয়ন হয়েছে। এই গ্রাম পঞ্চায়েত ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় কোটি কোটি টাকার প্রকল্পের কাজ করা হয়েছে। পরবর্তীতে এই মার্কেটের উপর হলঘর নির্মাণের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।’