দশমীর আগেই বোনাস পাবেন কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীরা

1930

নয়াদিল্লি: উৎসবের মরশুমে বোনাসের দাবিতে আগামিকাল দেশজুড়ে দু’ঘণ্টার ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে রেলকর্মীদের একটি সংগঠন।বোনাস না পেয়ে কেন্দ্র সরকারের অন্যান্য অংশের কর্মচারীদের মধ্যেও ক্ষোভের মাত্রা বাড়ছিল। সেই প্রবল চাপের মুখে বুধবার কেন্দ্র সরকারি কর্মচারীদের বোনাস ঘোষণা করল কেন্দ্র সরকার। আগামিকাল মহাপঞ্চমীর দিন থেকে সরকারি কর্মচারীদের জন্য ৩ হাজার ৭৩৭ কোটি টাকা বোনাসের অনুমোদন দিল কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা।

এদিন দুপুরে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর সাংবাদিক বৈঠক করে বলেন, ‘২০১৯-২০ অর্থবর্ষের জন্য প্রোডাক্টিভিটি এবং নন-প্রোডাক্টিভিটি বোনাসে অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। তার ফলে ৩০ লাখের বেশি নন-গেজেটেড সরকারি কর্মচারী লাভবান হবেন। এই ঘোষণার জন্য খরচ পড়বে ৩ হাজার ৭৩৭ কোটি টাকা।এর ফলে বাজারে চাহিদা বৃদ্ধি পাবে।’

- Advertisement -

মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর আরও জানিয়েছেন, দশমীর আগেই সরাসরি সরকারি কর্মচারীদের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে বোনাসের টাকা পৌঁছে যাবে। অর্থাৎ আগামী সোমবারের মধ্যেই সরকারি কর্মচারীরা বোনাস পেয়ে যাবেন। তিনি বলেন, বোনাস অনুমোদনের ফলে ভারতীয় রেল, ভারতীয় ডাক, এমপ্লয়িজ প্রভিডেন্ট ফান্ড অর্গানাইজেশন(ইপিএফও), এমপ্লয়িজ স্টেট ইনসিওরেন্স কর্পোরেশনের(ইএসআইসি) মতো বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ১৭ লাখ নন-গেজেটেড কর্মী বোনাস পাবেন। বাকি ১৩ লাখের মতো ‘নন-প্রোডাক্টিভিটি’ কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মী বোনাস পাবেন।

অন্যদিকে, সোমবার অল ইন্ডিয়া রেলওয়েমেন’স ফেডারেশনের তরফে জানানো হয়েছে, ২১ অক্টোবরের মধ্যে বোনাস ঘোষণা করা না হলে ২২ অক্টোবর, অর্থাৎ বৃহস্পতিবার দুই ঘণ্টার জন্য পরিষেবা বন্ধ রাখা হবে। ন্যাশনাল রেলওয়ে মজদুর ইউনিয়ন (এনআরএমইউ)-র তরফে বুধবারের মধ্যে সরকার কোনও সিদ্ধান্ত না নিলে আগামীকাল দুই ঘণ্টা পরিষেবা বন্ধ রাখার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, এর আগে ১৯৭৪ সালে দেশে রেল পরিষেবা স্তব্ধ করার আহ্বান জানিয়েছিলেন তৎকালীন রেল কর্মচারী সংগঠনের নেতা জর্জ ফার্নান্ডেজ। তবে তা রূপায়িত করার আগেই দেশে জরুরি অবস্থা জারি হয়ে যায়।