নাওয়া খাওয়া ভুলেছেন মাদারিহাটের প্রার্থীরা

80

রাঙ্গালিবাজনা: নাওয়া খাওয়া ভুলেছেন মাদারিহাটের প্রার্থীরা। মাদারিহাট বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের প্রার্থী রাজেশ লাকড়া ও বিজেপি প্রার্থী মনোজ টিগ্গার এখন দম ফেলার ফুরসত নেই। একের পর এক পথসভায় বক্তব্য রাখা, হাসিমুখে সবার সাথে কথা বলা, হাত মেলানো তো রয়েছেই। সারাদিন ধরে একের পর এক পথসভায় ভাষণও দিতে হচ্ছে তাদের। বাড়ি বাড়ি ছুটছেন সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী সুভাষ লোহারও। ভোট বড়ই বালাই। তাই ভোটারদের মন জয় করতে নানা কৌশলও অবলম্বন করতে হচ্ছে প্রার্থীদের। প্রবীণ নাগরিকদের ঘন ঘন প্রণাম করছেন প্রার্থীরা। ভোটারকে কখনও কোলেও তুলে নিচ্ছেন প্রার্থী। এলাকার চা বাগানগুলো চষে বেড়াচ্ছেন রাজেশ মনোজ। সম্প্রতি একটি চা বাগানে গীটার বাজিয়ে শিশুদের গানও শোনান রাজেশ। সারাদিনের কর্মসূচি সেরে ক্লান্ত দেহে ঘরে ফিরতে রাত বারোটা পেড়িয়ে যাচ্ছে। কখনও আবার রাতে বাড়ি ফেরাই হচ্ছেনা। ফের সকাল থেকে শুরু হচ্ছে প্রচারাভিযান।

মাদারিহাটে এবার তুমুল টক্কর শুরু হয়েছে তৃণমূল ও বিজেপির মধ্যে। কারণ, ২০১১ সালে রাজ্যে ক্ষমতায় এলেও মাদারিহাট বিধানসভা কেন্দ্রটি এখনও পর্যন্ত তৃণমূলের হাতে আসেনি। আবার বিজেপির দূর্গ হিসেবে পরিচিত মাদারিহাট বিধানসভা কেন্দ্রটি ধরে রাখতে মড়িয়া হয়ে উঠেছে বিজেপিও। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বীরপাড়ার লঙ্কাপাড়া, তুলসীপাড়া, রামঝোরা চা বাগানগুলিতে বেশ কয়েকটি মহল্লায় পথসভা ও বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচার চালান তৃণমূলের প্রার্থী টাইগার। তাঁর সমর্থনে শিশুবাড়ি হাটে একটি পথসভাও করে তৃণমূল।

- Advertisement -

এদিকে, সকালবেলা শিশুবাড়ি হাটে ‘চায়ে পে চর্চা’ কর্মসূচিতে যোগ দেন বিজেপির রাজ্য সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু, বিজেপি প্রার্থী মনোজ টিগ্গা। পথসভাগুলিতে অবশ্য বিজেপি ও তৃণমূল মূলত একে অপরের বিরুদ্ধে কাদা ছোঁড়াছুঁড়ি করে চলেছে। এদিকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে কর্মসংস্থান ও দারিদ্র্য দূরীকরণের আশ্বাস দিয়ে ভোট চাইছেন সংযুক্ত মোর্চার কর্মীরা।