শিলিগুড়িতে জুয়ার আড়ালে চলছে ক্যাসিনো

129

রাহুল মজুমদার ও সাগর বাগচী, শিলিগুড়ি : এ এক অন্য শিলিগুড়ি। একদিকে করোনার কোপে কাজ হারিয়ে দুমুঠো খাবারের খোঁজে মানুষ দোরে দোরে ঘুরছে। অন্যদিকে, মহামারি আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে শিলিগুড়ির হোটেলগুলিতে লক্ষ লক্ষ টাকা উড়ছে। সুরা আর নারীর আকর্ষণ তো আছেই, ভিড় জমছে জুয়ার বোর্ডে।

সেবক রোডের একটি হোটেলে ক্যাসিনোর স্টাইলে জুয়ার আসর বসার খবর পেয়ে পুলিশ রবিবার রাতে সেখানে হানা দিয়ে পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে। পুলিশ জানিয়েছে, ধৃতদের নাম শেখর আগরওয়াল, আশিস মুখিয়া, সাগর কুমার, মুন্না সুন্দর ও বেদ প্রকাশ। গত দেড় মাসে শিলিগুড়ির সেবক রোডের একাধিক হোটেলে পুলিশ হানা দিয়ে বেআইনিভাবে জুয়ার আসর বসানোর পাশাপাশি মহামারি আইনকে পাত্তা না নিয়ে পার্টি করার অভিযোগে ১৮ জনকে গ্রেপ্তার করেছে। প্রায় আট লক্ষ টাকা উদ্ধার হয়েছে। ধৃতরা প্রত্যেকেই প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী এবং প্রভাবশালী ঘরের ছেলেমেয়ে আইন ভেঙে এভাবে জুয়ার আসরে ভিড়ের ঘটনায় পুলিশের ভমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

- Advertisement -

শিলিগুড়ির ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (জোন-১) জয় টুডু বলেন, পুলিশ সবসময়ই সতর্ক রয়েছে। অভিযান চালিয়ে অভিযুক্তদের হাতেনাতে ধরা হচ্ছে। প্রচুর টাকার পোকার কয়েন উদ্ধার হয়েছে। জুয়ায় কত টাকার লেনদেন হয়েছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। হোটেল ব্যবসায়ী সংগঠন গ্রেটার শিলিগুড়ি হোটেলিয়ার অ্যাসোসিয়েশনের যুগ্ম সম্পাদক উজ্জ্বল ঘোষ বলেন, হোটেল জুয়ার আসর বসানোর ঘটনা কোনওভাবেই সমর্থনযোগ্য নয়। বিশেষ করে বর্তমান পরিস্থিতিতে বিষয়টিকে কোনওভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। পুলিশ এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিক। প্রয়োজনে আমরা পুলিশ ও প্রশাসনকে সহযোগিতা করব।

শিলিগুড়ি শহরের সেবক রোড, মাটিগাড়ার একাধিক হোটেলে জুয়ার আসর বসছে। এই হোটেলগুলির একদম ওপরতলায় ক্যাসিনো তৈরি করা হয়েছে। সেখানে যাতায়াতের জন্য গোপন রাস্তা আছে। মোটা টাকা দিলেই এখানে আরামে জুয়ার কারবারে শামিল হওয়া যায়। যেখানে ক্যাসিনো রয়েছে সেখানে পোকার কয়েন দিয়ে এই খেলায় শামিল হওয়া যায়। তবে ক্যাসিনোতে খেলা মূলত অনলাইনে হয়। বেশ কয়েকটি জায়গায় জুয়ার সাধারণ বোর্ড রয়েছে। শুধু শিলিগুড়িরই নন, আশপাশের জেলা, প্রতিবেশী রাজ্য বিহার থেকেও অনেকে এসে এই জুয়া খেলায় শামিল হচ্ছেন।

সম্প্রতি শিলিগুড়ির সেবক রোডের একটি হোটেলের জুয়ার আসরে হানা দিয়ে পুলিশ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছিল। তাদের হেপাজত থেকে ৪ লক্ষ ২৬ হাজার টাকা উদ্ধার হয়। সেবক রোডের একটি হোটেলে ক্যাসিনোতে জুয়ার আসর বসেছে বলে রবিবার শিলিগুড়ি পুলিশের স্পেশাল অপারেশন গ্রুপ (এসওজি)-এর কাছে খবর আসে। ভক্তিনগর থানার পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে ওএসজি সেখানে অভিয়ান চালায়। সিসিটিভি ক্যামেরায় দেখা যায় সেখানে জুয়ার আসর চলছিল। পুলিশি অভিযান চালিয়ে প্রায় চার লক্ষ টাকার ১০০টি পোকার কয়েন, পোকার বোর্ড, তাস, ডিভিডি প্লেয়ার, পেন ড্রাইভ উদ্ধার করে। ঠিক কত টাকার লেনদেন হয়েছিল তা জানতে পুলিশ ধৃতদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খতিয়ে দেখছে।

শিলিগুড়ির হোটেলগুলিতে জুয়ার আসর বসার ঘটনা নতুন কিছু নয়। এর আগেও বহুবার একাধিক হোটেলে জুয়ার আসর থেকে দুষ্কৃতীরা পুলিশের জালে ধরা পড়েছে। শুধু উত্তরবঙ্গের নয়, লাগোয়া বিহার থেকেও কুখ্যাত দুষ্কৃতীরা শিলিগুড়িতে এসে এসব জুয়ার আসরে টাকা ওড়াচ্ছে বলে পুলিশের কাছে খবর।