মণ্ডপে মা, ঘরে মানুষ-কী বলছেন তারারা?

241

অবশেষে ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত। কলকাতা হাইকোর্টের বক্তব্য, কোনও পুজোমণ্ডপেই দর্শনার্থীরা ঢুকতে পারবেন না। এই ইতিহাসের সামনে দাঁড়িয়ে তারারা কী বলছেন? শুনলেন মহুয়া বন্দ্যোপাধ্যায়

মানুষ যেন ভালো থাকেন

- Advertisement -

সাহেব চট্টোপাধ্যায়

মণ্ডপে মা, ঘরে মানুষ-কী বলছেন তারারা?| Uttarbanga Sambad | Latest Bengali News | বাংলা সংবাদ, বাংলা খবর | Live Breaking News North Bengal | COVID-19 Latest Report From Northbengal West Bengal Indiaআদালত দুর্গামণ্ডপ ফাঁকা রাখার নির্দেশ দিয়েছেন। সে তো আইনের ব্যাপার। এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করাটা আবার প্রশাসনের ব্যাপার। তাঁদের দায়িত্ব তাঁরাই ভালো বুঝবেন। এ বিষয়ে আলাদা করে কিছু বলা আমার শোভা পায় না। তবে বাংলার মানুষের জন্য এটুকু বলতে চাই, সকলে যা করুন না কেন, বিধি মেনে করুন। স্বাস্থ্য সংক্রান্ত নির্দেশিকা মেনে করুন। মানুষ যেন ভালো থাকেন, এটাই আমার ঐকান্তিক প্রার্থনা। তবে আমার নিজের পুজো কাটবে বাড়িতেই। পরিবারের সঙ্গে।  কোথাও ঘুরতে যাওয়ার কোনও পরিকল্পনা নেই।

ভাগ্যিস, নইলে পুজোর পর আবারও লকডাউন হত

অর্জুন চক্রবর্তী

মণ্ডপে মা, ঘরে মানুষ-কী বলছেন তারারা?| Uttarbanga Sambad | Latest Bengali News | বাংলা সংবাদ, বাংলা খবর | Live Breaking News North Bengal | COVID-19 Latest Report From Northbengal West Bengal Indiaভাগ্যিস এমন একটা রায় দেওয়া হল। এমনিতেই তো করোনা যেভাবে লাফিয়ে বাড়ছে, সামনের মাসে অবস্থা কী দাঁড়ায়, দেখুন না। তারপর পুজোর এমন ভিড় শুরু হলে তো আর কথাই নেই। দুর্গাপুজোটাই সুপার স্প্রেডার ইভেন্ট হয়ে দাঁড়াত। মানুষ যে হারে বেলাগাম হয়ে পুজোর বাজার করতে নেমে পড়েছে, দেখেই ভয় লাগছে। এমনিতেই দু-দিন মণ্ডপে ভিড় জমিয়ে ফেলেছে। আর নয়। রাশ টানা জরুরি ছিল। সঠিক সিদ্ধান্ত। আমি স্বাগত জানাই। আমি নিজে অবশ্য কোথাও গিয়ে কোনওবছরই ভিড় করি না। এবছরও প্রশ্ন নেই। বাড়িতে আমার আড়াই বছরের মেয়ে আছে। ষাটোর্ধ্ব বাবা (সব্যসাচী চক্রবর্তী) আছেন। শ্বশুরমশাই বয়স্ক। আমি ক্যারিয়ার হয়ে গেলে ভীষণ বিপদ। প্রতি বছরের মতো এবারও গাড়ির কাচ তুলে বেরোব। রাস্তা থেকেই অনেক ঠাকুর দেখা যায়। নিজেদের মতো আনন্দ করব। বাড়িতে সবাই মিলে সময় কাটাব। খাওয়াদাওয়া করব। আবাসনে ছোট করে পুজো হচ্ছে। সকালবেলাটা ফাঁকা থাকলে টুক করে যাব একবার। তবে বাংলার মানুষের জন্য এই সিদ্ধান্ত ভীষণ কার্যকরী। নইলে পুজোর পরই আবার যদি লকডাউন করে দিত হত, এমনিতেই দীর্ঘ আটমাস কাজ করতে না পারা মানুষজনের কী অবস্থা হত বলুন তো!

এমনই কিছু আঁচ করেছিলাম

চিরঞ্জিত

মণ্ডপে মা, ঘরে মানুষ-কী বলছেন তারারা?| Uttarbanga Sambad | Latest Bengali News | বাংলা সংবাদ, বাংলা খবর | Live Breaking News North Bengal | COVID-19 Latest Report From Northbengal West Bengal Indiaএমনই কিছু একটা হবে, ভাবনায় ছিল। আঁচ করছিলাম। লিখেওছি। সারা দেশে শুনছি করোনা পিক-এ উঠেছে। এবার সামান্য হলেও পড়তির দিকে। কয়েকটা রাজ্যের অবস্থা শুধু শোচনীয়। তাদের মধ্যে বাংলা একটা। আমার এলাকা বারাসত, উত্তর ২৪ পরগনা। এত মৃত্যু। বাপরে। কালও তো বেশকিছু মানুষ মারা গেছেন শুনলাম। এই রায়টা খুব জরুরি। পুজোর ভিড়ে করোনা সংক্রমণ যে কোথায় গিয়ে দাঁড়াত, ভাবতেই শিউরে উঠতে হয়। কিছুটা তো লাগাম দেওয়া গেল। আগামী বছর আবার আনন্দ হবে নিশ্চয়ই। এছাড়া হাইকোর্টের আরও একটা রায় ছিল। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পুজো কমিটিগুলিকে যে পঞ্চাশ হাজার টাকা অনুদান দিয়েছেন, সেই টাকা কোভিড সচেতনতার প্রসারে, মাস্ক স্যানিটাইজার কেনা আর বিতরণে খরচা করতে হবে। তার পুঙ্খানুপুঙ্খ হিসেবও দেখাতে হবে। এই নির্দেশও স্বাগত। এই তো, বরানগরের নেতাজি কলোনির লো ল্যান্ড কমিটির দুর্গোৎসবের একটি খবর পেলাম। ওরা এই অনুদানের পুরো টাকাটাই এক গরিব শিশুর বোনম্যারো ট্রান্সপ্ল্যান্টের চিকিৎসায় তার বাবার হাতে তুলে দিচ্ছে। ভদ্রলোক লকডাউনে কাজ হারিয়েছেন। এমন দৃষ্টান্ত গড়ে তুলুক পুজো কমিটিগুলো। আর তার সঙ্গে এমন রায়। আমরা আবার একটু জীবনে ফিরি এবার!

রায় দিয়ে ঘরে ঢোকাতে হচ্ছে

সুদীপ্তা চক্রবর্তী

মণ্ডপে মা, ঘরে মানুষ-কী বলছেন তারারা?| Uttarbanga Sambad | Latest Bengali News | বাংলা সংবাদ, বাংলা খবর | Live Breaking News North Bengal | COVID-19 Latest Report From Northbengal West Bengal Indiaশেষমেশ আইনি রায় দিয়ে মানুষকে ঘরে ঢোকাতে হচ্ছে! পুজোর ভিড় আটকাতে হাইকোর্টকে আসরে নামতে হচ্ছে! এতগুলো মৃত্যু, এত বিভীষিকার পরেও! মানুষ তাহলে কী পরিমাণ অসচেতন, দেখুন। পুজোর বাজার করতে যেভাবে নেমে পড়েছে, দেখে হতবাক হয়ে যাচ্ছি। রোজ কাগজ পড়ছে, টিভি দেখছে, আশপাশের পাড়ার খবর শুনছে। তারপরেও এই অবস্থা। কোনও বোধই নেই? এবারে ঘাড়ে হাত রাখতে হল হাইকোর্টের! যাক। তবু তো হল। যদিও গত দুদিন ধরে রাস্তায় কিছু কম মানুষ নামেনি। কম সংক্রমণ ছড়ায়নি। তবু বেটার লেট দ্যান নেভার। দেরিতে হলেও একটা চেষ্টা তো করা গেল। এই পুজোয় আমি নিজে একেবারে বাড়িতে। পরিবারের সঙ্গে। এক পা-ও বেরোব না কোত্থাও। হাইকোর্ট বলার আগে থেকেই এটা আমাদের সিদ্ধান্ত।

 

সুনামি ঠেকানো গেল

সন্দীপ্তা সেন

মণ্ডপে মা, ঘরে মানুষ-কী বলছেন তারারা?| Uttarbanga Sambad | Latest Bengali News | বাংলা সংবাদ, বাংলা খবর | Live Breaking News North Bengal | COVID-19 Latest Report From Northbengal West Bengal Indiaদুর্গাপুজোর পর করোনার সুনামি আসছে। এই যে আশঙ্কাটা ছিল চতুর্দিকে, সত্যি বলতে কী, ভয় ছিল তো বটেই। আর এমন কিছু হওয়াটাও বিচিত্র ছিল না। যদি সত্যিই মানুষের ঢল নামত রাস্তায়, চারদিনে সংক্রমণ যে কত লক্ষে গিয়ে পৌঁছত, কে জানে! বাঁধ দেওয়া গেল তাতে। হাইকোর্টের এই রায়কে স্বাগত জানাই। মানুষের স্বার্থে এর চেয়ে ভালো সিদ্ধান্ত আর হতে পারে না। পুজো তো প্রতি বছর হচ্ছে। আনন্দও হচ্ছে। সব ঠিক থাকলে আগামী বছরও হবে। এই একটা বছর সাবধানে থাকলে ক্ষতিটা কি! আমার নিজের কোনও পরিকল্পনা নেই। পুজো বাড়িতেই কাটাব। হয়তো বন্ধুদের বাড়ি যেতে পারি। একসঙ্গে খাওয়াদাওয়া করতে পারি। তবে ওই পর্যন্ত। এছাড়া আর কোনও কিচ্ছু করব না এ বছরটায়।