করোনা ভ্যাকসিনের জন্য কোল্ড স্টোরেজ ও সাপ্লাই চেনের পরিকল্পনা কেন্দ্রের

532

নয়াদিল্লি: বিশ্বজুড়ে চূড়ান্ত পর্বে রয়েছে বেশ কিছু করোনা ভ্যাকসিন ট্রায়ালের কাজ। সেদিক দিয়ে পিছিয়ে নেই ভারতও। তবে শুধু ভ্যাকসিন তৈরিই নয় পাশাপাশি এই সংক্রান্ত আরও বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে, যার মধ্যে অন্যতম লজিসটিকস। ভ্যাকসিন একবার তৈরি হয়ে গেলে কীভাবে তা মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া হবে, তা নিয়েও চলছে আলোচনা।

ভারতের বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তির সঙ্গে যুক্ত একাধিক সংস্থা এবং মন্ত্রক এই সংক্রান্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেছে। দেশের কোভিড ম্যানেজমেন্ট টিম আশা করে না আগামী বছরের আগে কোনও ভ্যাকসিন মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া যাবে বলে। এই মুহূর্তে প্রায় ৯টি ভ্যাকসিনের উপর নজর রাখছে নির্দিষ্ট বিভাগ। যার মধ্যে সবচেয়ে বেশি আশা যোগাচ্ছে অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রাজেনেকা। পুনের সংস্থা সিরাম ইনস্টিটিউট অ্যাস্ট্রাজেনেকার সঙ্গে অংশ নিয়েছে ভারতে এই ভ্যাকসিন তৈরির জন্য।

- Advertisement -

এই বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সরকারি আধিকারিক জানিয়েছেন, প্রথম ভ্যাকসিনের জন্য প্রয়োজনীয় পরিকাঠামো নিয়ে ইতিমধ্যে দুটি বৈঠক হয়েছে। আগামী কয়েক সপ্তাহে আরও বৈঠক হবে। পাশাপাশি তিনি এও জানিয়েছেন, শেষ মুহূর্তে যাতে কোনোরকম সমস্যা না হয় সে জন্য এই আলোচনা হচ্ছে। ভ্যাকসিন বন্টনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় সমস্যা উত্তর পূর্ব ভারতের প্রত্যন্ত এলাকায় পৌঁছে দেওয়া। সেক্ষেত্রে ওইসব এলাকায় বড় কোল্ড স্টোরেজের ব্যবস্থা রাখতে হবে। পাশাপাশি আলোচনা হচ্ছে কীভাবে ভ্যাকসিন দ্রুত মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া যাবে সেসব বিষয় নিয়েও।