কারা টিকা নিতে পারবেন, কারা নয়, জারি সরকারি নির্দেশিকা

502

নয়াদিল্লি: আগামী শনিবার সারাদেশে শুরু হচ্ছে করোনার টিকাকরণ। বিশ্বের বৃহত্তম টিকাকরণের ভার্চুয়াল সূচনা করবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তার আগেই টিকাকরণ সংক্রান্ত বেশ কয়েকটি নির্দেশিকা প্রকাশ করল কেন্দ্র। সেই নির্দেশিকা পাঠানো হয়েছে রাজ্যগুলোকেও। কারা এই টিকা নিতে পারবেন আর কারা নয়, সেই নির্দেশিকায় এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হয়েছে।

সরকারি নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে, ১৮ বছরের বেশি বয়সিদের টিকা দেওয়া হবে। প্রসূতি বা যাঁরা প্রেগন্যান্সি নিয়ে খুব একটা নিশ্চিত নন এবং যাঁরা শিশুদের স্তন্যপান করান এমন মহিলারা টিকা নিতে পারবেন না। দেশে সেরাম ইনস্টিটিউটের কোভিশিল্ড এবং ভারত বায়োটেকের কোভ্যাকসিন-এই দুটি সংস্থার টিকা দেওয়া হচ্ছে। যে কোনও একটি সংস্থারই টিকা নিতে পারবেন। তবে টিকার প্রথম এবং দ্বিতীয় ডোজ একই সংস্থার নিতে হবে বলে জানানো হয়েছে।

- Advertisement -

নির্দেশিকা অনুযায়ী, যদি কোনও ব্যক্তি অন্য রোগের জন্য টিকা নিয়ে থাকেন, তা হলে সেই টিকার সঙ্গে করোনার টিকা নেওয়ার সময়ের ফারাক ১৪ দিন হতে হবে। এছাড়া, করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন কিন্তু সুস্থ হয়ে উঠেছেন, এমন ব্যক্তিরা সুস্থ হওয়ার ৪-৮ সপ্তাহ পর টিকা নিতে পারবেন। আবার যে করোনা রোগীদের প্লাজমা থেরাপি দেওয়া হয়েছে, তাঁরা সুস্থ হওয়ার ৪-৮ সপ্তাহ বাদে টিকা নিতে পারবেন। পাশাপাশি, যাঁরা কোনও রোগে আক্রান্ত বা হাসপাতালে ভর্তি তাঁরা সুস্থ হওয়ার ৪-৮ সপ্তাহ বাদে টিকা নিতে পারবেন। নির্দেশিকায় আরও বলা হয়েছে, যে সব ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন, যাঁরা কঠিন রোগে আক্রান্ত তা সে হৃদরোগ, স্নায়ু, বা ফুসফুসজনিত রোগ-এমন রোগীদের টিকা দেওয়া যেতে পারে।

দেশের ৩ হাজার ৬টি কেন্দ্রে প্রায় ৩ লক্ষ স্বাস্থ্যকর্মীকে টিকা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন জাতীয় টিকা টাস্ক ফোর্সের প্রধান তথা নীতি আয়োগের সদস্য ভিকে পল। যথাযথ পদ্ধতিতে কোল্ড স্টোরেজগুলিতে টিকা সংরক্ষিত রাখা হয়েছে। প্রস্তুতি চূড়ান্ত টিকাকেন্দ্রগুলিতেও।