স্বামীর ছবি সঙ্গে নিয়েই ভোটের প্রচারে যাবেন বিজেপি প্রার্থী চাঁদিমা

186

বিশ্বজিৎ সরকার, হেমতাবাদ: ২০২০-র জুলাইয়ে বাড়ি থেকে দেড় কিলোমিটার দূরে একটি বন্ধ দোকানের বারান্দা থেকে হেমতাবাদের বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়ের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়েছিল। সেই রহস্য মৃত্যুর আজও কিনারা হয়নি। বালিয়ার টিনের চালের বাড়ির আনাচে-কানাচে এখনও শোকের ছায়া। দেবেন্দ্রনাথবাবুর  অস্বাভাবিক মৃত্যুতে এক লহমায় ছন্দহীন হয়ে গিয়েছে গোটা পরিবার। তবে মনোবল হারাননি তাঁর স্ত্রী চাঁদিমা রায়। হেমতাবাদ আসনে এবার বিজেপি প্রার্থী হয়েছেন চাঁদিমা। তিনি জানান, স্বামীর ছবি সঙ্গে নিয়েই ভোট প্রচারে যাবেন।

২০১৬ সালে সিপিএমের টিকিটে হেমতাবাদের বিধায়ক নির্বাচিত হন দেবেন্দ্রনাথ রায়। গত বছর ১৪ জুলাই বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে একটি বন্ধ দোকানের বারান্দায় তাঁর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। ঘটনায় রাজ্য তোলপাড় হয়। কিন্তু বিধায়কের মৃত্যু রহস্য আজও উন্মোচিত হয়নি। এবারের নির্বাচনে প্রয়াত বিধায়কের আসনে প্রার্থী হয়েছেন স্ত্রী চাঁদিমা। তিনি বলেন, ‘দল আমাকে টিকিট দেওয়ায় সকলেই খুশি। নাম ঘোষণার পর থেকেই উৎসাহী মানুষজন বাড়িতে এসে সহযোগিতার আশ্বাস দিচ্ছেন। ভোটে জিতে যদি মানুষের উপকার করতে পারি তবেই স্বামীর প্রতি প্রকৃত শ্রদ্ধা জানানো হবে।’

- Advertisement -

তিনি আরও জানান, তাঁর মূল লক্ষ্য হল, হেমতাবাদ বিধানসভা এলাকায় স্বাস্থ্য পরিষেবার উন্নতি, হেমতাবাদ গ্রামীণ হাসপাতালকে স্টেট জেনারেল হাসপাতালে পরিণত করা, হেমতাবাদে একটি মহিলা কলেজ ও একটি আইটিআই স্থাপন, নিকাশি নালা তৈরি সহ স্বামীর অসম্পূর্ণ সমস্ত কাজ শেষ করা।

তবে চাঁদিমা রায় এবারই প্রথম বিধানসভা ভোটে প্রার্থী হলেও নির্বাচনে অনেক আগেই তাঁর হাতেখড়ি হয়েছে। এর আগে তিনি পঞ্চায়েত নির্বাচনে জয়লাভ করেছেন। বিন্দোল গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধানের দায়িত্বও সামলেছেন। তবে এতদিন পাশে ছিলেন স্বামী দেবেন্দ্রনাথ রায়। এবার লড়াইটা তাঁকে লড়তে হচ্ছে একাই। স্বামীর ছবি সঙ্গে নিয়েই প্রচারে যাবেন তিনি। চাঁদিমা বলেন, ‘এখনও ভোটের প্রচারে বের হয়নি। দ্রুত প্রচারে নামব। দেওয়াল লিখন চলছে।’