প্রিয়র ভাবশিষ্য থেকে শুরু, এবার রব্বানি পূর্ণমন্ত্রীর দায়িত্বে

79

অরুণ ঝা, ইসলামপুর : গতবারের মন্ত্রীসভায় ছিলেন প্রতিমন্ত্রী। সেখান থেকে এবার তিনি রাজ্যের পূর্ণমন্ত্রী। গোয়ালপোখরের বামদুর্গকে চূর্ণ করে কংগ্রেসের টিকিটে প্রথমবার বিধায়ক হওয়া গোলাম রব্বানির রাজনৈতিক সাফল্যের গ্রাফ ক্রমশ ঊর্ধ্বগামী। একদা প্রয়াত প্রিয়রঞ্জন দাশমুন্সির ভাবশিষ্য থেকে প্রিয়-জায়া দীপাদেবীর বিশ্বস্ত সেনাপতি। বর্তমানে তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভরসার পাত্র।

সদ্য শেষ হওয়া বিধানসভা ভোটে প্রায় ৭৪ হাজার রেকর্ড ভোটে জয়, রাজ্য রাজনীতিতে রব্বানির গ্রহণযোগ্যতা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। শুধু গোয়ালপোখর জয়ই নয়, তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দীর্ঘদিনের পাখির চোখ চাকুলিয়া আসন জেতার পিছনেও রব্বানির বড় ভূমিকা রয়েছে বলে দলের অন্দরমহলে চর্চা তুঙ্গে।

- Advertisement -

সংখ্যালঘু প্রধান এলাকা থেকে শুরু হয়েছিল গোলাম রব্বানির রাজনৈতিক সফর। বর্তমানে তিনিই রাজ্যের সংখ্যালঘু ও মাদ্রাসা শিক্ষা দপ্তরের মতো গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীর পদে। স্বভাবতই পেশায় শিক্ষক রব্বানির মাধ্যমে এলাকায় বিভিন্ন উন্নয়নের কাজ গতি পাবে বলে আশাবাদী গোয়ালপোখর ও ইসলামপুরবাসী।

ইসলামপুর হাইস্কুলের শিক্ষক রব্বানি প্রিয়রঞ্জন দাশমুন্সির ঘনিষ্ঠ হয়ে উঠেছিলেন। রব্বানিকে কেন্দ্র করেই একসময় তিনি গোয়ালপোখরে কংগ্রেসের জমি চাষ করতে শুরু করেন। সেই সময় গোয়ালপোখর ও চাকুলিয়া মিলে একটি বিধানসভা এলাকা ছিল। সঙ্গে ছিল বামেদের দাপট ও শাসন। পরে চাকুলিয়া নতুন বিধানসভা এলাকা হিসাবে ঘোষিত হয়। দীপা দাশমুন্সি গোয়ালপোখর বিধানসভার বিধায়ক নির্বাচিত হওয়ার সময় ভোট ম্যানেজার হিসেবে রব্বানির ভূমিকা ছিল অন্যতম। সেই সময় দীর্ঘদিন রব্বানি কংগ্রেসের সংখ্যালঘু সেলের জেলা সভাপতির পদ সামলেছেন। দীপা রায়গঞ্জ লোকসভা আসনে সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার পর গোয়ালপোখর কেন্দ্র থেকে রব্বানি প্রথমবার কংগ্রেসের টিকিটে লড়াইয়ে নামেন। তবে সেবার তিনি হেরে যান। কিন্তু পরবর্তী ভোটে কংগ্রেসের টিকিটে রব্বানি জয়ী হয়ে বিধায়ক হিসাবে সফর শুরু করেন। তারপর থেকে তাঁকে আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি।

কংগ্রেস শীর্ষ নেতৃত্বের পাশাপাশি দীপার ওপর অভিমান করে রব্বানি তৃণমূলের পতাকা হাতে তুলে নেন। ২০১৬ সালের বিধানসভা ভোটে তৃণমূলের টিকিটে জয়ী হয়ে রাজ্যের প্রতিমন্ত্রী হন রব্বানি। লোকসভা ভোটের পারফরমেন্স থেকে শুরু করে গোয়ালপোখর এবং চাকুলিয়ার বিভিন্ন উন্নয়নে রব্বানির রিপোর্ট কার্ড বিরোধী লবিকে শিকড় গাড়তে দেয়নি। ফলে এবারও তাঁর জয়ে মার্জিন নেত্রীকে ভরসা জুগিয়েছে। নিজের এক সময়কার ছায়াসঙ্গী নাসিম এহসান সংযুক্ত মোর্চার এবং ভাই গোলাম সরওয়ার বিজেপির প্রার্থী হয়ে তাঁর ভোটব্যাংকে দাঁত বসাতে পারেননি।
দলের উত্তর দিনাজপুরের জেলা সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়াল বলেন, দপ্তরের মন্ত্রী হিসাবে এলাকাবাসীর চাওয়া-পাওয়া মেটাতে রব্বানি সক্ষম হবেন বলে আমার দৃঢ়বিশ্বাস। আমি তাঁকে শুভেচ্ছা জানিয়েছি।