আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া গ্রামে চিকিৎসার ব্যবস্থা করছেন চন্দ্রশেখর কুণ্ডু

76

আসানসোল: আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া এলাকা আসানসোলের পলাশডিহা ও সরাকডিহি। এই এলাকার বাসিন্দাদের মধ্যে বেশিরভাগই পেশায় দিনমজুর। করোনা আবহে সেইসব মানুষ এখন বলতে গেলে কর্মহীন। এই এলাকায় কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাঁদের একমাত্র সম্বল সরকারি হাসপাতাল। বর্তমান পরিস্থিতিতে এই হাসপাতালে রোগী উপচে পড়ছে। এলাকার বেশির ভাগ মানুষের কাছে নেই ফোন। অসুস্থ মানুষকে নিয়ে যাওয়ার জন্য যে অ্যাম্বুলেন্স ডাকবে, সে উপায়ও নেই। এই এলাকার মানুষদের জন্য প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সহ ‘দুয়ারে অক্সিজেন’ নিয়ে এসেছেন ‘ফুডম্যান’ বলে পরিচিত চন্দ্রশেখর কুণ্ডু। বাংলায় খাদ্য আন্দোলনের অন্যতম মুখ হলেন তিনি। এর আগে দুঃস্থদের জন্য তিনি প্রতিদিন খাবারের জন্য ফুড ব্যাংক তৈরি করেন। গতবছর লকডাউনে দুঃস্থ ছেলে-মেয়েদের জন্য পড়াশোনার ব্যবস্থা করেন। আমপানের সময় দিনের পর দিন তিনি রিলিফ নিয়ে পড়েছিলেন সুন্দরবনের মতো জায়গায়। এবার তিনি ও তাঁর বন্ধুরা মিলে আসানসোলের প্রান্তিক এলাকায় নিয়ে এলেন ‘দুয়ারে অক্সিজেন’। পলাশডিহা ও সরাকডিহা গ্রামে চন্দ্রশেখরবাবু ব্যবস্থা করেছেন আপাতকালীন চিকিৎসার। বিনামূল্যে অক্সিজেন সিলিন্ডারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। অক্সিজেন সিলিন্ডার কিভাবে চালাতে হবে তাও হাতে কলমে ট্রেনিং দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

কিভাবে শুরু হল এই অক্সিজেন দেওয়ার কাজ? চন্দ্রশেখর কুণ্ডু জানান, দিল্লির মতো জায়গায় অক্সিজেনের অভাবের কথা শুনে পশ্চিম বর্ধমান জেলায় অক্সিজেন প্ল্যান্ট ও সাপ্লায়ারদের খোঁজে নেমে পড়েন তিনি। পানাগড়, ওয়ারিয়া ও রানিগঞ্জে অক্সিজেন প্ল্যান্টের খোঁজ পাওয়া যায়। এরপরই ফেসবুকে তাঁর মোবাইল নম্বর পোস্ট করেন। অক্সিজেন যেখানে পাওয়া যায় তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা শুরু হয়। এরপর প্রতিদিন ছয়শোরও বেশি ফোন কল আসতে থাকে। রোগীদের প্রেসক্রিপশন দেখে ও কথা বলে উপযুক্ত লোককে সাপ্লায়ারের ফোন নম্বর দেওয়া শুরু হয়। ইসিএলের সালানপুর এরিয়া মেডিকেল অফিসার ডাঃ শম্পা চট্টোপাধ্যায় জানান, এখন জ্বর হলে করোনা ধরে নিয়েই কিট তৈরি করে বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি অক্সিজেন সিলিন্ডার কিভাবে চালাতে হবে তা হাতেকলমে শেখানো হচ্ছে, যাতে আপাতকালীন অবস্থায় মুমূর্ষু রোগীকে বাঁচানো যায়। রোগীর খবর পাওয়ার পর তাঁরা এবং চন্দ্রশেখর কুণ্ডু ও তাঁর সংস্থা সেখানে পৌঁছে যাবেন। এরপর শুরু হবে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা।

- Advertisement -