চাঁদের মাটিতে মরচের হদিস দিল ভারতের চন্দ্রযান

482

ওয়াশিংটন : চাঁদে মরচে ধরেছে। ধীরে ধীরে ক্ষয় হচ্ছে পৃথিবীর সবেধন নীলমণি উপগ্রহের। ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরোর তৈরি চন্দ্রযান-১-এর পাঠানো তথ্য বিশ্লেষণ করে এমনই চাঞ্চল্যকর ঘটনা সামনে এসেছে। চন্দ্রযান-১-এ রয়েছে নাসার মুন মিনারালোজি ম্যাপার ইনস্ট্রুমেন্ট নামে একটি যন্ত্র। সেই যন্ত্রের সাহায্যে চাঁদে মাটির গঠন ও খনিজ সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। এর সাহায্যেই সেখানে জল জমে বরফ হওয়ার কথা জানা গিয়েছিল। এবার সেই যন্ত্রের পাঠানো তথ্য বলছে, কোটি কোটি বছর ধরে চাঁদে মরচের আস্তরণ পড়ছে। যেখানে তরল জল বা অক্সিজেন নেই, সেখানে কীভাবে মরচে তৈরি হচ্ছে, তা নিয়ে ধোঁয়াশায় বিজ্ঞানীরা। সায়েন্স অ্যাডভান্সেস নামে এক জার্নালে এবিষয়ে একটি গবেষণাপত্র প্রকাশ করেছেন আমেরিকার হাওয়াই ইউনিভার্সিটির কয়েক জন গবেষক। গবেষক দলের প্রধান অধ্যাপক সুয়াই লি জানান, বহু বছর আগেই চাঁদে তরল জল ও অক্সিজেনের অস্তিত্ব মুছে গিয়েছে বলে মনে করা হয়। অথচ, এখনও সেখানে মরচে পড়ছে। কীভাবে এটা সম্ভব হতে পারে, তা নিয়ে গবেষণা চলছে। দেখা গিয়েছে, চাঁদের মেরু অঞ্চলের যেখানে বরফ রয়েছে, মরচে পড়েছে তার থেকে অনেক দূরে। বিজ্ঞানীদের মতে, চাঁদের মাধ্যাকর্ষণ শক্তি পৃথিবীর চেয়ে অনেক কম। ফলে চাঁদের পক্ষে বায়ুমণ্ডলকে ধরে রাখা সম্ভব হয়নি। তবে সেখানে মাটির নীচে তরল জল থাকার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। সেই জল যদি কোনওভাবে মাটির ওপর চলে আসে, তাহলে তা বিক্রিয়া করে মরচে তৈরি করলেও করতে পারে।