দুশো বছরের গাছ বাঁচাতে বাড়ির নকশা বদল

সৌরভকুমার মিশ্র, হরিশ্চন্দ্রপুর : প্রায় দুশো বছর আগে পরিবারের পূর্বপুরুষের লাগানো কাঁঠাল গাছ বাঁচিয়ে রাখতে নবনির্মিত বাড়ির নকশা পরিবর্তন করে ঘরের মধ্যে দিয়ে সেই গাছ বাঁচিয়ে রাখার উদ্যোগ নিল হরিশ্চন্দ্রপুরের ইসলামপুর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার ঝা পরিবার।

পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, এই পরিবারের পূর্বপুরুষ অনন্তলাল ঝা দুশো বছরেরও বেশি আগে বাড়ির চৌহদ্দিতে একটি কাঁঠাল গাছ লাগিয়েছিলেন। সময়ে সঙ্গে সেই গাছ মহীরুহ হয়ে উঠেছে। কিছুদিন আগে পরিবারের সদস্যরা এই জায়গায় নতুন বাড়ি তৈরির পরিকল্পনা নেন। নতুন বাড়ি তৈরিতে গাছটি বাধা হয়ে দাঁড়ায়। এদিকে প্রাচীন গাছটিকে কেটে ফেলতেও নারাজ পরিবারের সদস্যরা। তাই পরিবর্তন করা হয়েছে বাড়ির নকশাটাই। নতুন নকশায় সেই গাছ এখন বাড়ির ভিতরে।

- Advertisement -

পরিবারের সদস্য বিমান ঝা জানালেন, আমাদের আদি বাড়ি ছিল তৎকালীন বিহার ও অধুনা ঝাড়খণ্ডের মতিয়াবিহার অঞ্চলে। স্থানীয় ছোট তরফের মিশ্র জমিদারদের উদ্যোগে ইসলামপুর অঞ্চলে আমাদের পূর্বপুরুষ অনন্তলাল ঝাকে নিয়ে আসা হয়। স্থানীয় জমিদারদের উদ্যোগে এখানে সেই সময় একমাত্র কালীমন্দির নির্মাণ করা হয়েছিল। তার কুল পুরোহিত হিসাবে নিযুক্ত করা হয়েছিল আমাদের পূর্বপুরুষ অনন্তলাল ঝাকে। সেই সময় তিনি বাড়ির চৌহদ্দির মধ্যে এই কাঁঠাল গাছটি লাগিয়েছিলেন। একটি দুশো বছরের প্রাচীন গাছকে বাঁচিয়ে রাখতে আমরা এই পরিকল্পনা নিয়েছি। গাছটিকে বাঁচানো এবং বাড়ি তৈরি, দুটি বিষয় মাথায় রেখেই আমরা নতুন বাড়ির নকশায় পরিবর্তন করেছি।

বিমানবাবু আরও বলেন, পৃথিবীর সবুজ দিন দিন কমে যাচ্ছে। তাই আমরা এই গাছটি বাঁচানোর মাধ্যমে নতুন প্রজন্মের কাছে বার্তা দিতে চেয়েছি, পৃথিবীতে গাছের কত প্রয়োজন। গাছটি বাঁচাতে ঘরের ছাদে বড় ছিদ্র করতে হয়েছে। তার জন্য কিছুটা হলেও ঘরে বৃষ্টির জল পড়বে। তবে সেটা এমন কিছু নয়। এটুকুর জন্য যদি একটি দুশো বছরের প্রাচীন গাছ বেঁচে থাকে, সেটাই আমাদের কাছে বড় পাওনা।