নিজস্ব দপ্তর পেতে চলেছে চ্যাংরাবান্ধা উন্নয়ন পর্ষদ

467

চ্যাংরাবান্ধা, ৪ নভেম্বরঃ অবশেষে নিজস্ব দপ্তর পেতে চলেছে চ্যাংরাবান্ধা উন্নয়ন পর্ষদ। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে চলতি মাসেই এই দপ্তর চালুও করা হবে। তবে পর্ষদের স্থায়ী দপ্তর নয়। পর্ষদের জন্য চ্যাংরাবান্ধা বিডিও অফিস ক্যাম্পাসে পুরোনো একটি গেস্ট হাউসকে সংস্কার করা হয়েছে। সেখানেই উন্নয়ন পর্ষদের অফিস করে কাজ শুরু করা হবে।

উন্নয়ন পর্ষদ গঠনের তিন বছরের বেশি সময় পরেও পর্ষদের নিজস্ব কোনও বসার জায়গা এখনও হয়নি। এমনকি পর্ষদের কোনও সাইনবোর্ডও কোথাও চোখে পড়েনি। যার কারণে পর্ষদের কাজকর্ম করা নিয়েও ভীষণ সমস্যা হচ্ছিল। পর্ষদের ভূমিকা নিয়েও নানা মহলে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে। পর্ষদের নিজস্ব ভবন কবে নাগাদ তৈরি হবে সেটার কোনও ঠিক নেই। এই অবস্থায় তাই কাজকর্ম করার বিভিন্ন সমস্যা মেটাতেই চ্যাংরাবান্ধায় অস্থায়ীভাবে অফিস তৈরি করা হয়েছে। বর্তমানে যেটি চালুর অপেক্ষায় রয়েছে। ইতিমধ্যেই পর্ষদের এক্সিকিউটিভ অফিসার পদে যোগ দিয়েছেন এই ব্লকেরই প্রাক্তন বিডিও অনির্বান দত্ত। তিন বছর পর নিজস্ব দপ্তর এবং অধিকারিক মেলায় বর্তমানে কিছুটা হলেও কাজ করতে সুবিধা হবে বলে মনে করা হচ্ছে। যদিও স্থানীয়দের দাবি, অস্থায়ী নয়। চ্যাংরাবান্ধাতেই উন্নয়ন পর্ষদের নিজস্ব ভবন, স্থায়ী দপ্তর সহ যাবতীয় পরিকাঠামো গড়ে তোলা হোক। পাশাপাশি এই সীমান্ত বাণিজ্যকেন্দ্র এলাকার বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজগুলি শুরু করার দাবিতেও সোচ্চার হয়েছেন চ্যাংরাবান্ধাবাসী। এনিয়ে কি বলছেন পর্ষদের চেয়ারম্যান পরেশ চন্দ্র অধিকারী।শুনে নেওয়া যাক তার মুখ থেকেই।

- Advertisement -

চ্যাংরাবান্ধা উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যান পরেশচন্দ্র অধিকারী বলেন, ‘চ্যাংরাবান্ধায় বিডিও অফিসের একটি গেস্ট হাউসে শীঘ্রই পর্ষদের অফিস চালু করা হবে। অস্থায়ীভাবে সেখানে দপ্তর করে কাজ করা হবে। স্থায়ী অফিসের জন্য ইতিমধ্যেই চ্যাংরাবান্ধায় জমি দেখে রাখা হয়েছে। এবিষয়ে প্রক্রিয়া চলছে।’