গৌতম সরকার, চ্যাংরাবান্ধা: চালু হওয়ার আগেই মার্কেট কমপ্লেক্সের সিলিং খসে পড়তে শুরু করেছে। মেখলিগঞ্জ ব্লকের চ্যাংরাবান্ধা বাজারে নবনির্মিত মার্কেট কমপ্লেক্সের অবস্থা এমনই। যা নিয়ে রীতিমতো ক্ষোভে ফুঁসছেন এলাকার বাসিন্দারা। তাঁদের অভিযোগ, মার্কেট কমপ্লেক্স তৈরির পর দীর্ঘদিন ধরে সেটি ফেলে রাখায় বেহাল হয়ে পড়েছে। অথচ এটি চালু হলে সরকারের যেমন রাজস্ব আদায় হবে তেমনি বেশকিছু ব্যবসায়ী সহ সাধারণ মানুষজন উপকৃত হবেন। কমপ্লেক্সটির তিনতলা সরকারি নিয়ম মেনে অতিথিনিবাস হিসেবেও ব্যবহার করা য়েতে পারে। তবে উদ্বোধনের আগেই সিলিং খসে পড়ার ঘটনায় বিভিন্ন মহলে নানা প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। য়দিও প্রশাসন বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখছে বলে দাবি করা হয়েছে। তাদের দাবি, সাম্প্রতিক ঝড়ের তাণ্ডবে ওই সিলিং খসে পড়ে থাকতে  পারে। সবটাই দেখা হচ্ছে।

চ্যাংরাবান্ধা বাজারে ঢোকার মুখেই রাস্তার পাশে তিনতলা মার্কেট কমপ্লেক্সটি তৈরি করা হয়েছে। জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, বর্ডার এরিয়া ডেভেলপমেন্ট ফান্ডের বরাদ্দ টাকায় নির্মিত ভবনটির প্রথম এবং দ্বিতীয় তলায় স্টলগুলি বিলি করা হয় অনেকদিন আগেই। কিন্তু দ্বিতীয় তলে থাকা ১১টি স্টল এখনও বণ্টন হয়নি। তেমনই পড়ে রয়েছে তিনতলার স্টলগুলিও। একসময় মানুষজনের রাত্রিযাপনের ব্যবস্থা করার পরিকল্পনা ছিল। কারণ আন্তর্জাতিক ওই চ্যাংরাবান্ধা স্থলবন্দর এলাকায় সরকারি তরফে কোনো অতিথিনিবাস কিংবা হোটেলও নেই। তাই ব্যবসা সহ নানা কাজে এখানে আসা বাইরের লোকজনের রাত কাটানোর জায়গার ভীষণ অভাব। তাই এখানে রাত কাটানোর ব্যবস্থা করা হলে কিছুটা হলেও দেশ-বিদেশের মানুষের সুবিধা হবে। এখানে চ্যাংরাবান্ধা সীমান্ত দিয়ে বৈদেশিক বাণিজ্যের পাশাপাশি এখানকার ইমিগ্রেশন চেকপোস্ট দিয়ে দেশ-বিদেশের মানুষের যাতায়াত চলে। তাঁদের কোনো কারণে থাকার প্রযোজন হলে কোনো ব্যবস্থা নেই। এদিকে, ওই কমপ্লেক্স ভবনের স্টলগুলি বিলির দাবিতে সোচ্চার হয়েছেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরাও। চ্যাংরাবান্ধা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক মিতুল সাহা বলেন, মার্কেট কমপ্লেক্স চালু করার জন্য দিন কয়েক আগে মেখলিগঞ্জ ব্লক প্রশাসনকে স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে। এবিষয়ে আশ্বাস মিলেছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। এদিকে, সিলিং খসে পড়ার ঘটনার বিষয়ে বিস্তারিত খোঁজখবর নেওয়া হবে বলে মেখলিগঞ্জ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি নিয়তি সরকার জানিয়েছেন। এই ব্যাপারে মেখলিগঞ্জ বিডিও সাঙ্গে ইউডেন ভুটিয়া বলেন, বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে। অন্যান্য বিষয়গুলিও ব্লক প্রশাসনের তরফে গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে।